কথা রাখলেন মেয়র

0

যত তাড়া নগরের সড়কে। যার যখন যেভাবে ইচ্ছা পার হন সড়ক। আইনের তোয়াক্কা করেন খুব কম জনই। একদিকে ট্রাফিক সিগন্যাল অমান্য করে গাড়ি চালাচ্ছে চালকরা। অপরদিকে পথচারী সড়ক পার হচ্ছেন মর্জিমতো। সবমিলিয়ে হ-য-ব-র-ল অবস্থা। এর সঙ্গে যোগ হলো নিরাপদ সড়ক দাবিতে ছাত্রআন্দোলন। এ অবস্থায় নগরপিতা আ জ ম নাছির উদ্দিন কথা দিয়েছিলেন, তিনদিনের মধ্যে নগরের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে জেব্রা ক্রসিং করার।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, নগরেরে বিভিন্ন এলাকার স্কুল-কলেজ এবং গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে মোড়ে জেব্রা ক্রসিং বা ট্রাফিক সিগ্যানালে চিহ্নের কাজ প্রায় শেষ হয়েছে। নগরের আন্দরকিল্লার মুসলিম এডুকেশন সোসাইটি ও কদমমোবারক স্কুলের সামনের সড়কের জেব্রা ক্রসিংয়ের কাজ শেষ। এছাড়া নগরের ৪১ ওয়ার্ডের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনের সড়কের জেব্রা ক্রসিংয়ের কোনোটির কাজ শেষে, আবার কোনোটির শেষ পর্যায়ে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, নগরজুড়ে চলছে জেব্রা ক্রসিংয়ের কাজ। ইতোমধ্যে ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। শিগগির বাকি কাজও শেষ হয়ে যাবে।

এদিকে আজ বুধবার নগরের জামালখান খাস্তগীর স্কুলের সামনে জেব্রা ক্রসিং আনুষ্ঠানিকভাবে পায়ে হেঁটে উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জামালখান ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন।

পরে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে মেয়র বলেন, আমি যেদিন সিদ্বান্ত নিয়েছি সেদিন থেকে জ্রেবা ক্রসিংয়ের কাজ শুরু করেছি। নগরের সব স্কুল-কলেজ সামনে জেব্রা ক্রসিংয়ে কাজ চলছে।

জনগণকে আরো সচেতন হতে হবে উল্লেখ করে মেয়র বলেন, মানুষ ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পার হচ্ছে। পথচারীদের সচেতন করা জন্য বিভিন্ন সংগঠনকে আহ্বান জানাচ্ছি। এইকসঙ্গে চালক সমিতিকে মাধ্যমে ড্রাইভারদের সচেতনতা তৈরি করতে হবে। নিরাপদে রাস্তা পারাপার নিশ্চিত করতে হলে সবাইকে সচেতন হতে হবে।

এদিকে দ্রুত জেবা ক্রসিংয়ের কাজ শেষ হওয়ায় মেয়রের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান জামালখানসহ বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা। বিশেষ করে কথা দিয়ে কথা রাখার জন্য তারা মেয়রকে ধন্যবাদ জানান।

কদম মোবারক স্কুলের ছাত্র মুন্না বলেন, জেব্রা ক্রসিং দ্রুত বাস্তবায়ন করার জন্য মেয়র মহোদয়কে ধন্যবাদ। এখন প্রত্যাশা, পথচারী ও চালকদের মধ্যে সচেতন সৃষ্টি করা।

আন্দরকিল্লা মুসলিম এডুকেশন সোসাইটির ছাত্রী আকলিমা বলেন, জেব্রা ক্রসিং করার কথা দিয়েছিলেন মাননীয় মেয়র। কথা দিয়ে কথা রেখেছেন নগরপিতা। এজন্য তাঁকে ধন্যবাদ। এখন পথচারী ও চালকদের সচেতন হতে হবে।

এ ব্যাপারে প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমেদ জয়নিউজকে বলেন, আমরা নগরের ৪১ ওয়ার্ডের স্কুল-কলেজ ও গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে মোড়ে জেব্রা ক্রসিং করছি। ইতিমধ্যে ৮০ শতাংশ কাজ শেষ হয়ে গেছে।

 

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...