চট্টগ্রামের উন্নয়ন এখন জাতীয় দাবি : ড. মসিউর

0

প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়ন কোন আঞ্চলিক দাবি নয়। এটি এখন জাতীয় দাবি।

সোমবার (১৫ অক্টোবর) সকাল ১১টায় ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা উপ কমিটি আয়োজিত ‘ভিশন ২০২১ ও ভিশন ২০৪১ এর আলোকে উন্নয়ন রোডম্যাপ-চট্টগ্রাম বিভাগ’শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি একথা বলেন।

ড. মসিউর রহমান বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নের দাবি কোন আঞ্চলিক দাবি নয়, এটি সারা দেশের দাবি। এখানকার স্থানীয় পর্যায়ের উন্নয়ন ভাবনা, অনুভূতি, চাহিদা কেন্দ্রীয় পর্যায়ের চিন্তা-চেতনায় প্রভাব রাখবে।

তিনি আরো বলেন, উন্নয়ন শুধু প্রবৃদ্ধিই বাড়ায় না, উন্নয়ন পরিবর্তনও সাধন করে থাকে। তাই দেশের সর্বস্তরে পরিবর্তনের ছোঁয়া লেগেছে। কৃষির উন্নয়নের পাশাপাশি শিল্প গড়ে না উঠলে দেশের কাঙ্খিত সমৃদ্ধি অর্জন সম্ভব হবে না।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক টিপু মুন্শি এমপি বলেন, চট্টগ্রামে বন্দর, পর্যটন এবং মৎস্য খাতের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। শিপব্রেকিং এবং আরএমজি খাতেও এ অঞ্চলে সম্ভাবনা প্রচুর। বর্তমানে চীন থেকে অনেক কার্যাদেশ বাংলাদেশে আসছে।

তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নের মাধ্যমে সারা দেশের উন্নয়ন হবে। সামুদ্রিক অর্থনীতির মাধ্যমে দেশের ভাগ্য পরিবর্তন করা সম্ভব।

চট্টগ্রাম-১২ আসনের সাংসদ শামসুল হক চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী বাস্তবমুখী উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য কর্ণফুলী নদীর দুই পাশে শিল্প কারখানা গড়ে তোলা প্রয়োজন ।

চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, মিরসরাই ও আনোয়ারায় ইকনোমিক জোনের কাজ দ্রুত শেষ হলে দেশে-বিদেশে বিনিয়োগকারীরা শিল্প স্থাপনের সহায়তা করবে এবং এক্ষেত্রে প্রায় দেড় কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হবে। আগামী ৫০ বছরের চাহিদা পূরণে বে-টার্মিনাল ফার্স্ট ট্রেক প্রকল্প হিসেবে বাস্তবায়ন, বন্দরের জন্য প্রয়োজনীয় ইকুইপমেন্ট সংগ্রহ এবং বন্দরে প্রবেশ ও বের হওয়ার ক্ষেত্রে অন্তত ৫টি করে গেইট চালু করা প্রয়োজন।

চেম্বার সভাপতি আরো বলেন, চট্টগ্রামে অন্তত ৫টি ব্যাংকের হেডকোয়ার্টার স্থাপন করা প্রয়োজন হয়ে দাঁড়িয়েছে। বছরের একটি কেবিনেট মিটিং চট্টগ্রামে আয়োজন করা দরকার। দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ বৃদ্ধি করার জন্য বিমানের ফ্লাইট চালু করার মাধ্যমে যোগাযোগ ব্যবস্থায় গতি বৃদ্ধি এখন সময়ের দাবি।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক টিপু মুন্শি এমপির সঞ্চালনায় বন্দর, ব্লু ইকনোমি, বিগ বি ইনিশিয়েটিভ ও ডেল্টা প্ল্যানকে গুরুত্ব দিয়ে সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সেলিম উদ্দিন এফসিএ।

চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সহায়তায় সেমিনারে আরো বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, পরিচালক এ. কে. এম. আক্তার হোসেন ও ছৈয়দ ছগীর আহমদ, চেম্বারের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি এম. এ. সালাম, সাবেক পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ, এস. এম. আবু তৈয়ব ও ডা. মঈনুল ইসলাম, বিকেএমইএ’র সাবেক পরিচালক শওকত ওসমান, উইম্যান চেম্বারের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবিদা মোস্তফা, রিহ্যাব’র সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী, রাঙামাটি চেম্বারের সভাপতি মোঃ বেলায়েত হোসেন ভূঁইয়া, ফেনী জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুর রহমান, কক্সবাজার চেম্বারের সভাপতি আবু মোরশেদ চৌধুরী, অর্থ ও পরিকল্পনা উপ-কমিটির সদস্য ড. কানিজ আকলিমা সুলতানা, নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন ও মোহাম্মদ নাসির, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ’র সাধারণ সম্পাদক শামীমা হারুন লুবনা, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সহসভাপতি এ. এম. মাহবুব চৌধুরী, জিপিএইচ ইস্পাতের মিডিয়া এডভাইজর ওসমান গণি চৌধুরী এবং বাংলাদেশ লবণ মিল মালিক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী।

সেমিনারে অন্যান্যদের মধ্যে অর্থ ও পরিকল্পনা উপকমিটির সহসম্পাদক জিয়াউল আবেদীন, রাজিউর রেজা চৌধুরী খোকন, সাইফুল্লাহ আল-মামুন, মোঃ রাজীব পারভেজ, ফৌজিয়া হক, শেখ সেলিম রেজা, আরশাদ জামাল দীপু, জোবায়ের হাসান রুবন, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক রবিউল হাসান, চেম্বার পরিচালক কামাল মোস্তফা চৌধুরী, মোঃ অহীদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন) ও মোঃ জহুরুল আলম, ব্যবসায়ী নেতা তাহের সোবহান, জাপানের অনারারী কনস্যুলার জেনারেল মোঃ নুরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. শিরিন আখতার, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের যুগ্ম কমিশনার নাহিদ নওশাদ মুকুল, বিজিএমইএ’র সহ-সভাপতি নাসির, এইচআরসি’র সিনিয়র পরিচালক কাজী রুকুনউদ্দীন আহমেদ, বিএসটিআই’র পরিচালক ইঞ্জি. মোঃ সেলিম রেজা, বিটিসিএল’র চীফ জেনারেল ম্যানেজার ইঞ্জি. প্রবাল কুমার শীল, প্রিমিয়ার বিশ্ব বিদ্যালয়ের আর্কিটেক্ট ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী সোহেল এম. শাকুরসহ সরকারি-বেসরকারি উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

 

জয়নিউজ/ফয়সাল/জুলফিকার

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...