তরুণদের প্রযুক্তির দিকে মনোযোগী হওয়ার আহ্বান

0

তরুণদের জন্য প্রযুক্তিনির্ভর দেশ গড়তে সরকার কাজ করছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার (২১ অক্টোবর) সকালে গণভবনে মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি (এমএনপি) সেবা উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তরুণদের জাতির ভবিষ্যৎ আখ্যায়িত করে তিনি তাদেরকে ভালোমতো পড়াশুনা করে প্রযুক্তির দিকে মনোযোগী হওয়ার আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, তরুণদের প্রযুক্তির শিক্ষা দিতে পারলে তারা দেশকে এগিয়ে নেবে। আলোকিত জীবন তারাই আমাদেরকে দেবে।

তিনি বলেন, যতদিন ক্ষমতায় আছি পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে সব পদক্ষেপ নেব। আমরা বর্তমানকে উৎসর্গ করছি তরুণদের ভবিষ্যতের জন্য।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, আমরা যখন ২০০৮ সালে ক্ষমতায় আসি তখন ডিজিটাল বাংলাদেশের ঘোষণা দিয়েছিলাম। আজ ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তব। এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

এক অপারেটর থেকে আরেক অপারেটরে যাওয়ার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা অনেক সুবিধার। অনেকগুলো সিম ব্যবহার করতে হয় না। পৃথিবীর অনেক দেশে এই সুবিধা আছে। আজ থেকে আমরাও এই সুবিধায় যুক্ত হলাম।

বেসরকারি খাততে সরকার উৎসাহিত করছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মোবাইল ফোন বেসরকারি খাতে দিয়েছিলাম বলেই আজ মানুষের হাতে হাতে মোবাইল ফোন। তিনি জানান, তার সরকার পাঁচ হাজার ২৭৫টি ডিজিটাল সেন্টার করে দিয়েছে। এতে ইন্টারনেট সার্ভিসের আওতায় এসেছে সারাদেশে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার ও প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এবং মোবাইল অপারেটরগুলোর শীর্ষ ব্যক্তিরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

চলতি মাসের ১ তারিখ থেকে বাংলাদেশে পরীক্ষামূলকভাবে বাণিজ্যিকভাবে বহুল প্রতীক্ষিত এমএনপি সেবা চালু করা হয়েছে। এই সেবা চালু হওয়ার ফলে গ্রাহক তার নম্বর অপরিবর্তিত রেখেই যে কোনো কোম্পানির নেটওয়ার্ক ব্যবহার করার স্বাধীনতা পাবেন। যা এর আগে নম্বর পরিবর্তনের ঝামেলার জন্য সম্ভব ছিল না।

বিটিআরসি জানায়, বর্তমানে ৭২টি দেশে এমএনপি সেবা চালু রয়েছে। পাকিস্তানে ২০০৭ সালে ও ভারতে ২০১১ সালে এ সেবা চালু করা হয়।

জয়নিউজ/আরসি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...