প্রেসবক্সে একাই লড়ছেন পার্সি!

0

মাঠের সৌম্য-ইমরুলের প্রতিটি শটের আনন্দ ছড়িয়ে পড়ছিল হাজার বিশেক দর্শকের গ্যালারিতে। প্রেসবক্সে ছিল বাংলাদেশী সাংবাদিকদের তৃপ্তির ঢেকুর। এতসব আনন্দ আয়োজনে প্রেসবক্সে একটি মুখ ছিল ভীষণ বিষন্ন। তিনি প্রেসবক্সের ‘সবেধন নীলমণি’ হয়ে থাকা জিম্বাবুয়ের সাংবাদিক পার্সিভাল সিজারা।

জিম্বাবুয়ের সাংবাদিকের প্রতিনিধি হয়ে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ কাভার করতে ‘হারারে মেট্রো’ পত্রিকার এই সাংবাদিক এসেছিলেন চট্টগ্রামে। এখানকার মানুষের আতিথেয়তায় মুগ্ধ এই সাংবাদিক যারপরনাই হতাশ জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটীয় পারফরমেন্সে।

বাংলাদেশের কাছে টানা ১২ ম্যাচ হেরে তিনি কিছুটা বিব্রতও বটে। তবে বাংলাদেশ ক্রিকেটের প্রশংসায় কোন কার্পণ্য করেননি এই সাংবাদিক।

জয়নিউজের সাথে আড্ডায় সাংবাদিক পার্সি কথা বলেন দুই দেশের ক্রিকেট এবং সংস্কৃতি নিয়ে। নিজেদের সেই ক্রিকেটীয় ঐতিহ্য হারিয়ে খোঁজা জিম্বাবুয়ের একটি জয় যে খুব প্রয়োজন তা বারবার বলছিলেন পারসি। একটি জয় নাকি বদলে দিতে পারে তাদের ক্রিকেটকে। সেই জয়ের স্বাক্ষী হতে জিম্বাবুয়ের প্রতিটা খেলায় নজর রাখছেন পার্সি।

বাংলাদেশের ক্রিকেট পাগল দর্শকদের কথা তিনি বিশেষভাবে উল্লেখ করেন। দর্শকদের এতটা উন্মাদনা তাকে অভিভূত করেছে। প্রতিটি বলে দর্শকদের চিৎকার তাকে আনন্দ দিয়েছে।

নিজেদের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করতে না পারাটা খুব আহত করেছিল পার্সিকে। শুধু কি পার্সি! সারা জিম্বাবুয়ে নাকি সেই ব্যর্থতায় হতাশার চেয়ে ক্ষুব্ধ ছিল বেশি। ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ে ১১তম অবস্থানটাও খুব পোঁড়ায় তাকে।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের এই এগিয়ে যাওয়াকে সাধুবাদ জানিয়ে পার্সি বলেন, ক্রিকেটে সফলতার জন্য প্রয়োজন দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। বাংলাদেশের ক্রিকেটীয় অবকাঠামোর উন্নতিতে ক্রিকেট বোর্ড যেভাবে সহযোগিতা করছে তার ভূয়সী প্রশংসা করেন পার্সি। তিনি বলেন, ক্রিকেটে ধারাবাহিকতা খুব গুরুত্বপূর্ণ, জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট সেই ধারাবাহিকতা হারিয়েছিল বলেই আজ এই বাজে অবস্থায় পড়েছে। তবে এখন জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড তাদের ক্রিকেট নিয়ে অনেক বেশি সিরিয়াস। নতুন নতুন সব খেলোয়াড় তুলে আনছে বোর্ড, যারা সামনের দিনে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটকে হয়তো সেই হারানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে দেবে।

ম্যাচ হেরে বিষণ্ণ পার্সি কথা বললেন তার চট্টগ্রাম অভিজ্ঞতা নিয়েও। চট্টগ্রামের মানুষ তাকে এতটা আপন করবে তা তিনি ভাবেননি। চট্টগ্রামের ঝালযুক্ত খাবার তার নাকি খুব মনে ধরেছে। তবে তিনি সিলেটের সাত রঙ এর চা খেয়ে দেখতে চান।

৯ বছর ধরে সাংবাদিকতা করা পার্সি কাভার করেছেন জিম্বাবুয়ের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ। বাংলাদেশের জন্য শুভেচ্ছা জানিয়ে পার্সি বলেন, কোন একদিন আমরা তোমাদের নিশ্চয়ই হারাবো।

জয়নিউজ/জুলফিকার

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...