চোখের সামনেই পুড়ছিল পূরবী সিনেমা হল

0

কর্ণফুলী তীরে গড়ে ওঠা নেভাল-২ আর শাহ আমানত সেতু এলাকায় ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা শুক্রবার বিকেলে নির্বাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিলেন আগুনের লেলিহান শিখার দিকে। আগুনের উৎপত্তিস্থল ছিল পূরবী সিনেমা হলের পিছনের মাঠ। যেখানে সারি সারি স্তূপে রাখা ছিল কর্ণফুলী নদী আর বঙ্গোপসাগরে মাছ শিকারের জাল। মাঠের আগুন একপর্যায়ে ছড়িয়ে পড়ে পার্শ্ববর্তী সুতার গুদাম, আশেপাশের দোকানপাট থেকে শুরু করে পূরবী সিনেমা হল পর্যন্ত। প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্য, আগুনে সিনেমা হলটির বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখিন হতে হয়েছে।

গত এক দশকে গুলজার, বনানী, জলসা থেকে শুরু করে নগরের অধিকাংশ সিনেমা হল ভেঙে একের পর এক বহুতল বিপণীবিতান গড়ে তোলা হয়। অবশিষ্ট ছিল তিনটি। সিনেমা প্যালেস, আলমাস ও পূরবী। সিনেমার এই মন্দার বাজারে পূরবী সিনেমা হলটি শুক্রবারের আগুনের ক্ষতি আদৌ কাটিয়ে উঠতে পারবে কি-না, তা নিয়ে সংশয় জেগেছে নগরের সিনেমাপ্রেমিদের মাঝে।

অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত সমীর জলদাস অশ্রুসজল নয়নে বলেন, চোখের পলকেই আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়ে চতুর্দিকে। আগুনের তীব্রতা এতটাই ছিল যে সাধারণ মানুষের কিছুই করার ছিল না। সবাই অপেক্ষায় ছিল ফায়ার সার্ভিসের। ফায়ার সার্ভিস আসার পর তাদের প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

ফায়ার সার্ভিসের চট্টগ্রাম আঞ্চলিক উপসহকারী পরিচালক জসিম উদ্দিন জয়নিউজকে রাত নয়টায় জানান, শুক্রবার (৩০ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪টায় আগুনের সূত্রপাত হয়। ধারণা করা হচ্ছে সুতার স্তূপ থেকেই আগুনের সূত্রপাত। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের আগ্রাবাদ, চন্দনপুরা, নন্দনকানন, লামাবাজার ও বন্দর স্টেশনের ১২টি ইউনিট একযোগে কাজ করেছে। সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। এখন পোড়া মালামাল সরানো হচ্ছে। যদি কোন কারণে আবার আগুনের সূত্রপাত হয় তা নিবারণের জন্য একটি গাড়ি স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। ক্ষয়-ক্ষতির ব্যাপারে তিনি বলেন, এখনো পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতি নির্ণয় হয়নি।

স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ ইসমাইল বালি জয়নিউজকে জানান, শুধু সুতার গুদামের ক্ষয়-ক্ষতি কোটি টাকার বেশি হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়াও পার্শ্ববর্তী পূরবী সিনেমা হলসহ আশপাশের দোকানপাটের ক্ষয়-ক্ষতিতো আছেই। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা নাগাদ আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে বলেও জানান তিনি।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা সহকারী জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ হাবিবুর রহমান জয়নিউজকে জানান, আগুনে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। টাকার অংকে তা কোটি টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জয়নিউজ/ফারুক/জুলফিকার

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...