মাতারবাড়ির কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প এলাকায় লবণ চাষে নিষেধাজ্ঞা

0

কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়ির কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য অধিগ্রহণকৃত ১২শ’ একর জমিতে লবণ উৎপাদন বন্ধ করতে কোল পাওয়ার কর্তৃপক্ষ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) মাতারবাড়ি এলাকায় এজন্য মাইকিং করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

সূত্র জানায়, মাতারবাড়িতে ২টি কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের একটির জন্য ১৪শ’ ১৪ একর ভূমি অধিগ্রহণ করার পর সেখানে ২০১৫ সাল থেকে অবকাঠামো নির্মাণের কাজ শুরু হয়। অপরটির জন্য ১২শ’ একর ভূমি অধিগ্রহণ হলেও এখনো ঐ প্রকল্পে কোন ধরনের অবকাঠামো নির্মাণের কাজ শুরু না করায় জমির মালিকরা চাষাবাদ করছেন। উক্ত জমিতে লবণ উৎপাদন ও লবণ বিক্রি চলছে।

অপরদিকে অধিগ্রহণকৃত উক্ত জমিতে মার্চ-এপ্রিল মাসে ছোটখাটো অবকাঠামো নির্মাণ করার জন্য কোল পাওয়ার কর্তৃপক্ষের পরিকল্পনাও রয়েছে। এ অবস্থায় কোল পাওয়ার কর্তৃপক্ষ লবণ উৎপাদন বন্ধ করার জন্য বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) মাতারবাড়িতে মাইকিং করে সতর্ক করে দিয়েছেন লবণ চাষিদের। মাইকিং ছাড়াও কোল পাওয়ার মাতারবাড়ি শাখায় দায়িত্বরত পুলিশ ও আনসার বাহিনী মাঠে গিয়ে লবণ চাষিদের মাঠ ছেড়ে দেওয়ার জন্য সতর্কও করে দিচ্ছেন।

অপরদিকে জমির মালিক, চাষি ও কোল পাওয়ার কর্তৃপক্ষের মধ্যে অন্তত এ বছর চাষাবাদ করা নিয়ে বৈঠক হয়েছে বলেও সূত্র জানায়।

মাতারবাড়ি আওয়ামী লীগ নেতা ও জমির মালিক কাউছার সিকদার বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছায় আমরা জমি দিয়েছি প্রয়োজনে আরো জমি দেব কিন্তু পরিত্যক্ত জমিতে গরীব চাষিদের কাজ করার সুযোগ প্রদানের জন্য কোল পাওয়ার কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানান।

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কোল পাওয়ারের শীর্ষস্থানীয় এক কর্মকর্তা বলেন, কোল পাওয়ার কর্তৃপক্ষ সেখানে অচিরেই কাজ শুরু করবে বিধায় কারো আবেদন-নিবেদন গ্রহণযোগ্য হবে না।

মাতারবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মাস্টার মোহাম্মদ উল্লাহ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এখনো অনেক জমির মালিকরা অধিগ্রহণ বা ক্ষতিপূরণের টাকা পাননি, অব্যবহৃত জমিতে গরিব মানুষ চাষাবাদ করলে মন্দ কি। যখন কাজ শুরু হবে তখন কাজ বন্ধ করা উচিত হবে বলে মনে করেন তিনি। বিষয়টি বিবেচনা করার জন্য সংসদ সদস্যসহ প্রশাসনকে অবহিত করবেন বলে তিনি জানান।

জয়নিউজ/শামীম/বিশু

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...