মৃত্যুর মুখ থেকে অপহৃত কলেজছাত্রকে উদ্ধার করল পুলিশ

0

দুর্ধর্ষ অভিযান পরিচালনা করে নিশ্চিত মৃত্যুর মুখ থেকে অপহৃত এক কলেজছাত্রকে উদ্ধার করেছে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। এ ঘটনায় এক অপহরণকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ভিকটিম সাদেক সোবহান সাকিবকে (১৭) উদ্ধার করার পর জানা গেছে, তার আপন খালাত ভাই মো. জাহাঙ্গীর তাকে অপহরণ করেছিল।

সাকিবের বাবা ফজলুল কবির জয়নিউজকে জানান, প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) ঘর থেকে কলেজের উদ্দেশ্যে বের হয়েছিল সাকিব। কিন্তু অন্যদিনের মতো সেদিন আর ঘরে ফেরেনি সে। উল্টো দুপুর ২টা ৪৫ মিনিটে আমার কাছে ফোন আসে সাকিবকে অপহরণ করা হয়েছে। ৫০ লাখ টাকা দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে যেতে হবে ছেলেকে। সাতকানিয়া থানায় বিষয়টি অবহিত করি। থানা পুলিশও বাড়িয়ে দেয় সাহায্যের হাত। সাতকানিয়া থানা পুলিশ তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় জানতে পারে অপহরণকারীরা নগরের পাহাড়তলীতে অবস্থান করছে। এরপর বিষয়টি তারা নগর গোয়েন্দা পুলিশকে অবহিত করে।

তিনি আরো জানান, এবার একজোট হয়ে মাঠে নামে নগর গোয়েন্দা পুলিশ ও সাতকানিয়া থানা পুলিশ। টানা দুইদিন তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তারা অপহরণকারীদের অবস্থান শনাক্ত করতে থাকে। তবে অপহরণকারীরা বারবার পাল্টাতে থাকে তাদের অবস্থান। এরমধ্যে অপহরণকারীরা আমাকে আবার ফোন দিয়ে টাকার অঙ্ক ৪০ লাখ টাকায় নিয়ে আসে। কারণ আমি বলেছিলাম আমার স্ত্রী অসুস্থ। তাকে আজকেই শহরে নিয়ে যেতে হবে। তখন অপহরণকারীরা আমাকে বলেছিল, টাকা আমার ঘরে রাখতে। কিন্তু স্ত্রীর অসুস্থতার বাহানায় একটি অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে আমাদের বাড়ির সামনে আনি। এসময় অপহরণকারীদের বলি, তারা কোথায় আছে আমাদের জানাতে। সেখানেই আমরা গিয়ে টাকা দিয়ে আসব। তবে তারা বুঝতে পারে পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। ফলে তারা টাকা নিয়ে আমার ছেলেকে মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয়। সর্বশেষ রোববার (১৩ জানুয়ারি) অপহরণকারীদের অবস্থান শনাক্ত হয় লোহাগাড়ার আমিরাবাদ বাজারে।  নগর গোয়েন্দা পুলিশ ও সাতকানিয়া থানা পুলিশ ওইস্থানে অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়।

অভিযানের ব্যাপারে জানতে চাইলে নগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার মইনুল হোসেন জয়নিউজকে বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় আমরা জানতে পারি সাকিবের আপন খালাত ভাই মো. জাহাঙ্গীর এ অপহরণের সঙ্গে জড়িত। তৎক্ষণাৎ জাহাঙ্গীরের বাবা ও মাকে সঙ্গে নিয়ে লোহাগাড়ার আমিরাবাদ বাজারের এম কে বোর্ডিংয়ে পুলিশ হানা দেয়। এসময় জাহাঙ্গীরের সঙ্গী হোসাইন সাকিবকে হাত-পা গামছা দিয়ে বেঁধে জবাই করার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। তবে পুলিশ যথাসময়ে গিয়ে সাকিবকে উদ্ধার করে।

তিনি আরো বলেন, এ ঘটনায় হোসাইনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া ওই রুম থেকে ২টি ছুরি, হিস্টাসিন ট্যাবলেট ও অকেজো বন্দুক উদ্ধার করা হয়। তবে জাহাঙ্গীর ও তার অন্য সঙ্গীকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তাদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে।

জয়নিউজ/আরসি
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...