লাগেজ নয়, লুকানো ছিল আড়াই লাখ ইয়াবা

0

নগরের শাহ আমানত সেতুর উপর একটি পিকনিকের বাসের লাগেজ রাখার স্থানে তল্লাশি চালিয়ে ২ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ করেছে র‌্যাব। এ ঘটনায় বাসের মালিকসহ ৬ জনকে আটক করা হয়েছে।

শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) ভোর সাড়ে ৬টার দিকে ইয়াবাসহ বাসটি আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন বাসের মালিক মো. আতিয়ার রহমান (৫৫), মো. মাসুদ রানা (৩১), মো. বাবলু (৪৭), মো. ইকবাল হোসেন (৩৭), মো. জুয়েল (৩৯) ও মো. আমিনুর রহমান সুমন (২৩)। তাদের বাড়ি যশোর, রাজশাহী ও সাতক্ষীরা জেলার বিভিন্ন এলাকায়।

পরে সকাল ৮টার দিকে শাহ আমানত সেতুর উপর আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ঘটনার বর্ণনা দেন র‌্যাব-৭ এর উপ-অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লিডার শাফায়াত জামিল ফাহিম।

তিনি জানান, যশোর থেকে কক্সবাজারে বেড়াতে এসে ফেরার পথে ভেতরে বাসের মালপত্র রাখার জায়গায় বিশেষ কৌশলে ইয়াবা নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল বলে খবর পায় র‌্যাব। পরে বাসটি শাহ আমানত সেতুতে পৌঁছালে সেতুর উপরেই বাসটিতে তল্লাশি চালানো হয়। এসময় বাসটি থেকে মোট ২ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। ইয়াবাগুলো আনেন আতিয়ার, মাসুদ রানা, বাবলু ও ইকবাল নামে চার ব্যক্তি। বাসটির মালিক আতিয়ার রহমানের উদ্যোগে এ পিকনিকের আয়োজন করা হয়েছিল।

ঘটনার বিবরণে র‌্যাব কর্মকর্তা ফাহিম জানান, গত ৫ ফেব্রুয়ারি ৪০ যাত্রীসহ বাসটি যশোর থেকে কক্সবাজার যায়। বাসের সবাই একে অপরের আত্মীয় ও বন্ধু। কক্সবাজার গিয়ে বাসের অন্য যাত্রীরা সেন্টমার্টিন বেড়াতে গেলেও টেকনাফে রয়ে যান আতিয়ার রহমান, মাসুদ রানা, বাবলু, ইকবাল হোসেন, বাসের চালক জুয়েল ও আমিনুর রহমান সুমন। তাদের ইয়াবাগুলো চট্টগ্রাম, ঢাকা ও যশোরে হস্তান্তর করার পরিকল্পনা ছিল বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেছে। তবে ইয়াবার সঙ্গে বাসের সবাই জড়িত নয়। এতে আটককৃত ৬ জনের সম্পৃক্ততা রয়েছে।

উদ্ধার করা এ ইয়াবার চালানটি র‌্যাব-৭ এর আটক করা এ বছরের সবচেয়ে বড় চালান।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন র‌্যাব-৭ এর চান্দগাঁও ক্যাম্প কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মিমতানুর রহমান, মিডিয়া অফিসার এএসপি মো. মাশকুর রহমান, এএসপি কাজী মোহাম্মদ তারেক আজিজ।

জয়নিউজ/পলাশ/জুলফিকার
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...