গাপটিলের সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের হার

0

মার্টিন গাপটিলের সেঞ্চুরিতে নেপিয়ারে বাংলাদেশের বিপক্ষে জয় পেয়েছে নিউজিল্যান্ড। প্রথম ওয়ানডেতে ৮ উইকেটের সহজ জয়ে তিন ম্যাচ সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেছে স্বাগতিকরা।

বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ৪৮.৫ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৩২ রান তোলে বাংলাদেশ। জবাবে ৩৩ বল বাকি থাকতেই ৮ উইকেট হাতে রেখে জয় নিশ্চিত করে নিউজিল্যান্ড।

লক্ষ্য তাড়ায় উদ্বোধনী জুটিতে শতরান পায় নিউজিল্যান্ড। এরপরই কিউই শিবিরে আঘাত হানেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ডানহাতি স্পিনারের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন হেনরি নিকোলস। ৮০ বলে ৫৩ রান করেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। দ্রুতই আউট হন নতুন ব্যাটসম্যান কেন উইলিয়ামসন। নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর বলে এলবিডব্লিউ হন ১১ রানে।

দ্রুত ২ উইকেট হারালেও গাপটিল ছিলেন দুর্দান্ত। জমাট ব্যাটিংয়ে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন এই ওপেনার। তাকে তৃতীয় উইকেটে সঙ্গ দেন রস টেলর। তাদের অবিচ্ছিন্ন ৯৬ রানের জুটিতে হেসেখেলে জয় পায় নিউজিল্যান্ড। ম্যাচসেরা নির্বাচিত হওয়া গাপটিল ১১৭ ও টেলর ৪৫ রানে অপরাজিত ছিলেন।

বাংলাদেশের হয়ে মেহেদী মিরাজ ও মাহমুদউল্লাহ ১টি করে উইকেট নেন।

এর আগে টসে জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই ট্রেন্ট বোল্টের বলে কট বিহাইন্ড হয়ে দলীয় ৫ রানে আউট হয়ে ফেরেন ওপেনার তামিম ইকবাল। তবে মিডল অর্ডারের সাবধানতায় ৪৪ ওভারে দুইশ পার করে বাংলাদেশ।

তামিম ফেরার পর দ্রুত উইকেট হারাতে থাকে সফরকারী বাংলাদেশ। আরেক ওপেনার লিটন দাস ব্যক্তিগত ১ রানে ম্যাট হেনরির বলে বোল্ড হন। তৃতীয় উইকেট জুটিতে চাপ সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন সৌম্য সরকার ও মুশফিকুর রহিম।

তবে সেই চেষ্টাও ব্যর্থ করে দলীয় ৪২ রানে বোল্টের বলে প্যাভিলিযনের পথ ধরেন মুশফিক। আস্থার সঙ্গে ব্যাট করতে থাকা সৌম্য সরকারও ক্রিজে টিকতে পারেননি খুব বেশি সময়। ২২ বলে ৩০ রান করে সাজ ঘরে ফেরত যান তিনিও।

প্রথম ১০ ওভারে বাংলাদেশ পূর্ণ করে ৫০ রান। চতুর্থ উইকেট জুটিতে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ এবং মোহাম্মদ মিঠুন। তবে নিউজিল্যান্ডের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে রান তোলার গতি ছিল খুবই ধীর। দলীয় ৭১ রানে ফার্গুসনের বলে স্লিপে রস টেইলরের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন মাহমুদউল্লাহ। তার পরে ক্রিজে নামা সাব্বির রহমানও ২০ বলে ১৩ রান করে ফেরত যান।

দলকে এগিয়ে চেষ্টা করেন মেহেদি হাসান মিরাজও। দলীর স্কোর শত পার করে টেনে নিয়ে আরও কিছু দূর। তবে ২৭ বলে ২৬ রান করে স্যান্টনারের বলে আউট হয়ে ফেরেন তিনিও।

এরপর ক্রিজে আসেন সাইফুদ্দিন। এসেই মোহাম্মদ মিঠুনের সঙ্গে গড়েন ৮৪ রানের জুটি। দলীয় ২১৫ রানের মাথায় স্যান্টনারের বলে গাপটিলের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন তিনিও। সাইফুদ্দিন করেন ৪১ রান।

সাইফুদ্দিনের বিদায়ের পর মোহাম্মদ মিঠুনও আর বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। দলীয় ২২৯ রানের মাথায় ব্যক্তিগত ৬২ রানে ফার্গুসনের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি। শেষ দিকে মাশরাফি বিন মর্তুজা অপরাজিত থাকেন ৯ রান করে।

নিউজিল্যান্ডের পক্ষে বল হাতে ৩টি করে উইকেট নেন ট্রেন্ট বোল্ট এবং মিচেল স্যান্টনার। ম্যাট হেনরি ও লকি ফার্গুসন নেন ২টি করে উইকেট।

আরও পড়ুন: নিউজ্যিলান্ডকে ২৩৩ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ

জয়নিউজ/শহীদ
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...