শিবির করার অভিযোগে চবি শিক্ষার্থীকে মারধর

0

শিবিরের সঙ্গে সম্পৃক্ত সন্দেহে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে শাখা ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। এসময় ইটের আঘাতে ওই শিক্ষার্থীর মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়।

রোববার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলার ঝুপড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার সাইফুল্লাহ খালেদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। মারধরকারীরা ছাত্রলীগের বগিভিত্তিক সংগঠন সিক্সটি নাইনের কর্মী বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, রোববার সকাল ১১টার দিকে সাইফুল্লাহ নাস্তা করতে কলা ঝুপড়িতে গেলে ছাত্রলীগের সিক্সটি নাইনের কর্মীরা শিবির সন্দেহে তাকে বেধড়ক মারধর করে। এসময় ইটের আঘাতে তার মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়। বিষয়টি জানতে পেরে প্রক্টরিয়াল বডি পুলিশের সহায়তায় সাইফুল্লাহকে সেখান থেকে উদ্ধার করে চবি মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আহত শিক্ষার্থী সাইফুল্লাহ খালেদ জয়নিউজকে বলেন, ২০১৩ সালে একটি ইসলামিক পোস্ট শেয়ার করার কারণে তারা আমাকে মারধর করেছে। অথচ আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হই ২০১৫ সালে।

ইসলামিক স্টাডিজ সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও সাইফুল্লাহর সহপাঠী মাসুম বিল্লাহ আরিফ বলেন, সাইফুল্লাহ খুব মেধাবী ও নিয়মিত ছাত্র। সে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত। তাকে কখনো রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে দেখিনি।

এ বিষয়ে সিক্সটি নাইন গ্রুপের নেতা ও চবি ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু তোরাব পরশ জয়নিউজকে বলেন, সে ছাত্রশিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কেও উল্টাপাল্টা লিখত। অতীতেও সে নাশকতার কাজে জড়িত ছিল এবং ক্যাম্পাসে নাশকতার পরিকল্পনা করছিল। এ ব্যাপারে আমাদের কাছে স্ক্রিনশট আছে।

চবি মেডিকেল সেন্টারের চিফ ড. আবু তৈয়ব বলেন, মাথায় গুরুতর আঘাত থাকায় প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আহত শিক্ষার্থীকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে চবি প্রক্টর অধ্যাপক আলী আজগর চৌধুরী জয়নিউজকে বলেন, একজন ছাত্রকে মারধর করা হয়েছে। আমরা তাকে উদ্ধার করে মেডিকেলে পাঠিয়েছি।

জয়নিউজ/নওয়াব/বিশু

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...