পদ হারালেন পাকমন্ত্রী

0

হিন্দুদের নিয়ে ‘অপমান ও উস্কানিমূলক’ মন্তব্য করার ফলে পদ হারালেন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) নেতা এবং পাঞ্জাব প্রদেশের তথ্য ও সংস্কৃতিমন্ত্রী ফায়াজ-উল হাসান চৌহান। বিতর্কিত মন্তব্যের পর তিনি পদত্যাগ করেছেন।

পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যমগুলো জানানো হয়, সংখ্যালঘু হিন্দুদের নিয়ে ‘অপমান ও উস্কানিমূলক’ মন্তব্যের পর তার ব্যাখ্যা চেয়ে ফায়াজ-উল হাসান চৌহানকে ডেকে পাঠান পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী উসমান বুজদার। সেখানে তাকে (ফায়াজ-উল হাসান চৌহান) দায়িত্ব থেকে সরে যেতে বলা হয়। পরে তিনি পদত্যাপত্র জমা দেন এবং তা গ্রহণ করেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী।

পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার ১০ দিন পর গত ২৪ ফেব্রুয়ারি এক সমাবেশে ফায়াজ-উল হাসান চৌহান বেশ কিছু ‘হিন্দু-বিরোধী’ মন্তব্য করেন বলে অভিযোগ ওঠে। তার মধ্যে হিন্দুদের ‘গোমূত্র পানকারী’ বলে আখ্যা দিয়েছেন -এমন অভিযোগও রয়েছে। তার ওই বক্তব্যের পর শাসক দলের নেতামন্ত্রীসহ বিভিন্ন মহল থেকে সমালোচনা শুরু হয়।

সরকারি এক হিসেব মতে পাকিস্তানে প্রায় ৭৫ লাখ হিন্দু ধর্মের মানুষের বসবাস রয়েছে। তাদের সিংহভাগই বসবাস করেন সিন্ধু প্রদেশে। মন্ত্রীর মন্তব্যের পর তারও সোশ্যাল মিডিয়ায় মুখ খুলেন। চাপের মুখে পদত্যাগ করার আগে ক্ষমাও চান ফায়াজ-উল হাসান চৌহান।

তিনি বলেন, ‘আমার মন্তব্য পাকিস্তানে হিন্দু সম্প্রদায়কে যদি আঘাত করে থাকে তাহলে ক্ষমা চাচ্ছি। তবে আমার বক্তব্য পাকিস্তানের হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতি কোনোভাবেই নির্দেশিত হয়নি।’

দলের নেতার বিতর্কিত মন্তব্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সরাসরি মুখ না খুললেও তার বিশেষ সহযোগী নইমুল হক বলেন, ‘সরকার এ ধরনের নির্বুদ্ধিতা সহ্য করবে না।’ একই সঙ্গে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও টুইট বার্তায় জানিয়েছিলেন তিনি।

জয়নিউজ/বিশু

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...