রাউজানে দিনভর বিক্ষোভ, সড়ক অবরোধ-ভাঙচুর

আ’লীগ নেতার ওপর হামলা

0

রাউজানে আওয়ামী লীগ নেতার ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেছেন তার কর্মী-সমর্থকরা। এসময় তারা ঘটনায় সম্পৃক্ততার অভিযোগে মুনিরিয়া যুব তবলীগ কমিটির তোরণ ও বিলবোর্ড ভাঙচুর করেন।

৭নং রাউজান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতি লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোজ্জামেল হকের ওপর হামলার প্রতিবাদে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। হামলায় আহত মোজ্জামেল হকের ভাই রাউজান থানায় এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুর ১টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল করে। মিছিল শেষে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি মহাসড়কের পাখখাইন্যা পুকুর পাড় এলাকায় সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে অবরোধ করা হয়। এসময় মোজ্জামেল হকের ওপর হামলার অভিযোগে মুনিরিয়া যুব তবলীগ কমিটির সদস্যদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান দলীয় নেতা-কর্মীরা।

এদিন বিকালে মোজ্জামেল হকের ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে দক্ষিণ রাউজানের নোয়াপাড়া পথেরহাটে চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়ক অবরোধ করে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। অবরোধ চলাকালে চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

প্রতিবাদ কর্মসূচি চলাকালে পুলিশের একাধিক দলকে জলকামান ও সাজোয়া যান নিয়ে রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় টইল দিতে দেখা যায়। পরে বিকালে রাউজানের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়।

এদিকে হামলার প্রতিবাদে রাউজান পৌরসভার সূর্যসেন চত্বরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়। সভায় হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন খান, রাউজান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ, আওয়ামী লীগ নেতা জসিম উদ্দিন চৌধুরী, সুমন কল্যাণ বড়ূয়া, সাবেক চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম চৌধুরী, নুরুল ইসলাম শাহজাহান, চেয়ারম্যান বিএম জসিম উদ্দিন হিরু, নুরুল আমিন, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রানা, জসিম উদ্দিন, শোয়েব খান, যুবলীগ নেতা সুমন দে, দিপলু দে, তপন দে, কুতুব উদ্দিন, আলী মেহেদী রাজু, হাসান মোহাম্মদ রাসেল, জিয়াউল হক রোকন, মুন্সি মিজান, ইসহাক ইসলাম, এনামুল হক, সাবের উদ্দিন, আসাদ, আবু ছালেক, ছাত্রলীগ নেতা জিল্লুর রহমান মাসুদ, শাখাওয়াত হোসেন পিপলু, আশিফ, নাসির উদ্দিন, সাজ্জাদ, আরমান সিকদার, ফয়সল মাহমুদ প্রমুখ ।

প্রসঙ্গত, বুধবার (১৭ এপ্রিল) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে রাউজান উপজেলার ৭নং রাউজান ইউনিয়নের রমজান আলী হাট থেকে মোটর সাইকেলে ফেরার পথে মোজাম্মেল হকের ওপর হামলা করে একদল দুর্বৃত্ত। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে প্রথমে রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে নগরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় মোজ্জামেল হকের ভাই এনামুল কবির বাদী হয়ে রাউজান থানায় বৃহস্পতিবার মামলা দায়ের করেন। মামলার এজাহারে মুনিরিয়া যুব তবলীগ কমিটির ১১ জন সদস্যের নাম উল্লেখ ও মুনিরিয়া যুব তবলীগ কমিটির ৫০-৬০ জন অজ্ঞাতনামা অনুসারীকে আসামি করা হয়।

জয়নিউজ/শফিউল/জুলফিকার

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...