যুদ্ধে যৌন সহিংসতা বন্ধের প্রস্তাবে আপত্তি যুক্তরাষ্ট্রের

0

যুদ্ধ চলাকালে ধর্ষণকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার বন্ধ এবং এর শাস্তি নিশ্চিতে একটি প্রস্তাব উত্থাপন করেছিল জার্মানি৷ কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভেটো দেওয়ার হুমকিতে তাতে পরিবর্তন আনতে হয় নিরাপত্তা পরিষদকে।

বরাবরই গর্ভপাতের বিরুদ্ধে নিজের অবস্থানের কথা জানিয়ে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ এবার তার এ অবস্থানের কারণে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আটকে গেল যুদ্ধের সময় যৌন সহিংসতা বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার একটি পদক্ষেপ৷ ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদে ১৩-০ ভোটে পাশ হয় প্রস্তাবটি। চীন এবং রাশিয়া ভোটদানে বিরত ছিল৷

নিরাপত্তা পরিষদে প্রায়ই নানা বিষয়ের প্রস্তাবে সদস্য রাষ্ট্রগুলো আপত্তি জানিয়ে থাকে৷ নিজেদের অবস্থান, আন্তর্জাতিক রাজনীতি ও কৌশলের কারণে স্থায়ী পাঁচ সদস্যের কারো ভেটোর হুমকি দেওয়ার ঘটনাও নতুন নয়৷ কিন্তু যুদ্ধে যৌন সহিংসতা বন্ধের মতো প্রস্তাবে কিভাবে কারো আপত্তি থাকতে পারে, সে বিষয়টিই ভাবাচ্ছে অনেককে৷

আপাতদৃষ্টিতে সাধারণ মনে হলেও বিষয়টির সঙ্গে আরো অনেককিছুই জড়িত৷ ট্রাম্প ও যুক্তরাষ্ট্রের আপত্তির মূল জায়গা ছিল প্রস্তাবের তিনটি বিষয়৷

প্রস্তাবের বিভিন্ন স্থানে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের বেশ কিছু মামলার উদাহরণ টানা হয়েছে৷ তবে ২০০২ সাল থেকে কার্যকর হওয়া এই আদালতটি স্থাপনে যে আন্তর্জাতিক চুক্তি  হয়েছিল, তাতে এখনও সমর্থন করেনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ ফলে সে আদালতকে স্বীকৃতিই দেয়নি যুক্তরাষ্ট্র৷

২০১৩ সালে যৌন সহিংসতা বন্ধে একটি প্রস্তাব গ্রহণ করে জাতিসংঘ৷ তখন বারাক ওবামার সরকার সেটিতে সম্মতি দিলেও ট্রাম্প প্রশাসন কিছুদিন আগেই জানিয়ে দিয়েছে, এই প্রস্তাবের ভাষা তাদের পছন্দ নয়৷ একই কারণে জার্মানির উত্থাপন করা নতুন প্রস্তাবটিরও বিরোধিতা করেছে দেশটি৷

মানবাধিকার সংস্থাগুলো যুক্তরাষ্ট্রের এমন অবস্থানে হতাশা প্রকাশ করেছে৷ যুদ্ধে লিপ্ত দেশগুলোর কাছে এ অবস্থান ‘ভুল বার্তা’ পৌঁছে দেবে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছে সংস্থাগুলো৷

জয়নিউজ/আরসি
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...