যেভাবে কাটবে দুই নেত্রীর ঈদ

0

সামনে পবিত্র ঈদুল ফিতর, তাই নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছে মানুষ। ফাঁকা হচ্ছে রাজধানী। সবার মধ্যে চলছে উৎসবের আমেজ। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে চলতি সপ্তাহের বুধ (৫ জুন) অথবা বৃহস্পতিবার (৬ জুন) বাংলাদেশে পবিত্র ঈদুল ফিতর পালিত হবে। এ উপলক্ষে সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে বিভিন্ন দলের রাজনীতিবীদদেরও চলছে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দুটি বড় দলের প্রধান তাই দেশ-বিদেশে দলের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের আগ্রহও তাদের নিয়ে বেশ।

দেশের হেভিওয়েট নেতারা কে কোথায় কীভাবে ঈদ পালন করেন এ নিয়ে আগ্রহের কম নেই সাধারণ মানুষের। যেহেতু হেভিওয়েট নেতাদের এসব বিষয় খুবই গোপনীয়ভাবে নির্ধারণ ও পালিত হয়ে থাকে তারপরও সাধারণ মানুষের এ নিয়ে কৌতুহলের শেষ নেই।

রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সরকারের সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, বিএনপি মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও এরশাদপত্নী রওশন এরশাদ-কে কোথায় ঈদ করবেন তা পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
তিন দেশ সফরের অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। সেখান থেকে তিনি পারিবারিক ও ব্যক্তিগত সফরে যাবেন ফিনল্যান্ডে। সেখানে তিনি ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য বৈঠকে মিলিত হবেন। সূত্র জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী সেখানে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঈদ করবেন। ইতোমধ্যে পরিবারের সদস্যরা সেখানে পৌঁছে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বেশ কয়েকটি মামলায় কারাভোগে আছেন। এর মধ্যে তার কারাবাস প্রায় দেড় বছর ছাড়িয়ে গেছে। সুত্র বলছে, এবার তিনি বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ঈদ করবেন। তার সঙ্গে পরিবার ও দলীয় কয়েকজন নেতা দেখা করতে যাবেন বলেও জানা গেছে।

হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ
আগে প্রতি ঈদে প্রায়ই রংপুরে নিজ গ্রামের বাড়িতে যেতেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। কিন্তু এখন তাঁর বয়স হয়েছে, এছাড়া তিনি বেশ অসুস্থ। এ কারণে এবার তাঁর ঈদ কাটবে বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্কে। দলীয় সূত্র নিশ্চিত করছে, সেখানে দলীয় নেতাদের সঙ্গে ঈদ করবেন জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।

ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তিন মাস অসুস্থতার পর এখন কিছুটা সুস্থ হলেও তাঁকে নিয়মিত চিকিৎসকের পরামর্শে চলতে হচ্ছে। ঈদ করতে তিনি নোয়াখালী তাঁর নিজ গ্রামে যেতে পারেন বলে জানা গেছে। তবে একটি সূত্র জানিয়েছে, তিনি সুস্থ থাকলে ও তাঁর ব্যক্তিগত ডাক্তারগণ যদি তাকে গ্রামে যেতে ‍অনুমতি দেন তবেই তিনি যাবেন। না হলে ঢাকায় ঈদ করবেন।

মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর
একটি সুত্র জানিয়েছে, আবহাওয়া ভালো থাকলে তিনি ঠাকুরগাঁও তাঁর নিজ বাড়িতে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে ঈদ করবেন। তবে দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার সঙ্গে হাসপাতালে দেখা করার অনুমতি পেলে গ্রামের বাড়িতে না গিয়ে ঢাকায় ঈদ করবেন বলে জানা গেছে।

রওশন এরশাদ
দলের সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য ও দশম সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ। এ নিয়ে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সঙ্গে তাঁর সাক্ষাৎ খুব একটা হয় না। তবে ফোনে প্রতিদিনই এরশাদের খোঁজখবর নেন তিনি। জানা গেছে তিনিও এবার ঢাকার তাঁর বাসায় ঈদ করবেন।

জয়নিউজ/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...