নাড়ির টানে শহর ছাড়ছে মানুষ

0

কাছে-দূরে যে যেখানেই থাকুন না কেন, ঈদের ছুটিতে নাড়ির টানে সবাই ফিরে আসেন আপন ঠিকানায়। ঈদ মানেই ইট-পাথরের শহর ছেড়ে প্রিয়জনের সান্নিধ্যে যাওয়ার আনন্দ।

সোমবার (৩ জুন) সকালে চট্টগ্রামের অলংকার মোড়, একে খান মোড়, বিআরটিসি ও নতুন ব্রিজে গিয়ে দেখা যায়, কাউন্টারে কাউন্টারে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়। বাস আসার সঙ্গে সঙ্গে নিজের সিটটা খুঁজে নিতে ব্যস্ত সবাই। কেউ একা, কেউবা পরিবারসহ ছুটছেন গন্তব্যে। অনেকে কাউন্টারে এসে সংগ্রহ করছেন টিকিট।

আব্দুল খালেক নামে এক যাত্রী ঢাকায় যাওয়ার জন্য নন এসি টিকিট কেটেছেন সৌদিয়া বাস কাউন্টার থেকে। তিনি জয়নিউজকে বলেন, আজ ছুটি পেলাম। শেষ দু’দিন রাস্তায় যানজট থাকে। তাই আগেভাগে বাড়ি যাচ্ছি।

লিচি আজাদ নামে এক যাত্রী জয়নিউজকে বলেন, ঈদের ছুটি কাটাতে কক্সবাজার যাচ্ছি। পরিবাবের সবাইকে নিয়ে ঈদের ছুটি কাটাবো।

কাউন্টারগুলোতে যাত্রীদের চাপ সামলাতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন কর্তৃপক্ষ। যাত্রীদের প্রত্যাশিত টিকিট দিতে পেরে সন্তুষ্ট তারা।

অলংকার মোড়ে হানিফ এন্টারপ্রাইজের কাউন্টারের ম্যানেজার আজিজুর রহমান স্বপন জানান, রোববার (২ জুন) থেকে যাত্রীর সংখ্যা বেড়েছে। আজ (সোমবার) ও আগামীকাল (মঙ্গলবার) চাপ আরো বাড়বে। পথে যানজট না থাকায় নির্দিষ্ট সময়ে গাড়ি পৌঁছে যাচ্ছে।

এদিকে ট্রেনেও ঘরমুখী যাত্রীদের চাপ লক্ষ্য করা গেছে। বটতলী রেলওয়ের স্টেশন ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ জয়নিউজকে বলেন, আজ ও আগামীকাল ভিড় বেশি। তবে সময় অনুযায়ী ট্রেন পোঁছে গেছে গন্তব্যে। ঈদ উপলক্ষে বেলা ১২টায় মহানগর এক্সপ্রেস, দুপুর ৩টায় গোধূলি এক্সপ্রেস এবং বিকাল ৫টায় মেঘনা এক্সপ্রেস ছেড়ে যাচ্ছে গন্তব্যে।

মহানগর এক্সপ্রেসের যাত্রী ব্যাংকার হায়দার আহম্মেদ জয়নিউজকে বলেন, ঈদের আনন্দ সবার সঙ্গে কাটাতে পরিবার নিয়ে ঢাকা যাচ্ছি। অনেকদিন পর বাড়ি যাচ্ছি। স্বজনের সঙ্গে দেখা হবে ভাবতেই খুব ভালো লাগছে।

জয়নিউজ/আরসি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...