সড়ক এখন নদী

0

স্টাফ রিপোর্টার : দূর  থেকে দেখে মনে হবে আপন মহিমায় বয়ে চলা এক নদী। যেখানে চলছে নৌকাসহ অন্যান্য নৌযান। তবে কাছে যেতেই দূর হয়ে যাবে ভ্রম। নদী নয়, এ যে সড়ক! বৃষ্টির পানি জমে এ সড়কটি দূর থেকে মনে হচ্ছে ছো্ট্ট এক নদী।

মঙ্গলবার (২৪ জুলাই) চট্টগ্রাম নগরের ২নং গেইট এলাকায় গিয়ে দেখা যায় এ চিত্র। ক্যামেরায় ধরা পড়ে হাজারো মানুষের দুর্ভোগের চিত্রও।

মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে নগরজুড়ে চলছে টানা বৃষ্টি। এতে ডুবে গেছে নগরের নিম্নাঞ্চল। জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য এলাকায়।

পতেঙ্গা আবহাওয়া অধিদফতর গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ৭৯ মিলিলিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে।  কর্মকর্তারা বলছেন, মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকায় আজ ও পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে চট্টগ্রামসহ খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও দমকা হাওয়াসহ ভারী (৪৪-৮৮ মিলিমিটার) থেকে অতি ভারী (৮৯ মিলিমিটারের বেশি) বর্ষণ হতে পারে।

সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা গেছে, চকবাজার, বাকলিয়া, চান্দঁগাও, সিডিএ আবাসিক, আগ্রাবাদ, মুরাদপুর, দুই নম্বর গেট, প্রবর্তক মোড়সহ নগরের নিম্নাঞ্চল ডুবে গেছে বৃষ্টির পানিতে। অনেক এলাকার মানুষ এখন পানিবন্দী। এতে দুর্ভোগে পড়েছে শিক্ষার্থী, চাকরিজীবীসহ খেটে খাওয়া মানুষ। চাকরির খাতিরে বৃষ্টি মাথায় নিয়ে কেউ কেউ বের তাদের পোহাতে হয়েছে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ। তাদের অনেককে হতে হয়েছে কাকভেজা। আর যারা অটোরিকশা কিংবা রিকশা নিয়ে অফিস গেছেন তাদের গুণতে হচ্ছে বাড়তি ভাড়া।

আগ্রাবাদ ছোটপুল এলাকার বাসিন্দা আবুল কালাম জয়নিউজবিডিকে জানান, আমরা অনেক অভাগা। কারণ প্রায় সময় জোয়ারের পানিতে আমরা দিনে দুইবার ডুবি। টানা বৃষ্টি হলে কোমরপানিতে বন্দি থাকতে হয়। সিডিএ জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রকল্প গ্রহণ করলেও এখনো দৃশ্যমান কোনো কর্মকাণ্ড চোখে না পরায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

মুরাদপুর এলাকার বাসিন্দা হোসেন আলী বলেন, বৃষ্টি পড়লেই মুরাদপুরের মানুষ পানিবন্দি হয়ে যায়। যান চলাচলতো দূরের কথা নদীর মতো পানির স্রোত দেখা যায়।

আগ্রাবাদ এলাকার বাসিন্দা আফজাল হোসেন বলেন, জোয়ারের পানি এবং বৃষ্টির পানিতে পুরো আগ্রাবাদ এলাকায় নদীতে পরিণত হয়েছে। যানবাহনতো নেই পায়ে হেঁটে চলাচলও দুঃসাধ্য।

শুধু আগ্রাবাদ নয় হালিশহরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে বৃষ্টি ও জোয়ারের পানি প্লাবিত হয়েছে। হালিশহর এলাকার মুবিন আহম্মদ বলেন, বৃষ্টি শুরু হলে হালিশহর থেকে আগ্রাবাদ এলাকায় যাতায়াতে চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়। ঠিক মত গাড়ি পাওয়াও কষ্টকর এবং ভাড়াও হয়ে যায় দ্বিগুণ।

বিপি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...