আন্দোলনে ছাত্রদলের সাবেক নেতারা, কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তালা

0

বয়সসীমা নির্ধারণ না করে ধারাবাহিক কমিটির দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন ছাত্রদলের বিগত কমিটির নেতাকর্মীরা। তারা রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের মূল ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেন। মঙ্গলবার (১১ জুন) সকাল সোয়া ১১টায় কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আন্দোলন শুরু করেন এই নেতাকর্মীরা। এর আগে সকাল ১০টা থেকে সাবেক ছাত্রনেতারা নয়াপল্টনের সামনে জড়ো হতে শুরু করেন।

জানা যায়, সকাল সোয়া ১১টায় নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের মূল ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেন ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। পরে ১১টা ২০ মিনিটে কার্যালয়ের সামনে আসেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুর হক মিলন, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এবং প্রশিক্ষণ বিষয় সম্পাদক এবিএম মোশারফ হোসেন।

বিএনপির এই চার নেতা কার্যালয়ে প্রবেশ করতে চাইলে তাদেরকে বাধা দেওয়া হয়। এ সময় তাদের সঙ্গে ছাত্রনেতাদের কমিটি নিয়ে তর্ক-বিতর্ক হয়।

বিএনপির চার নেতাকে ছাত্রনেতারা বলেন, বয়সসীমা নির্ধারণ না করে ছাত্রদলের ধারাবাহিক কমিটি দিতে হবে। আর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী একাই দু’টি পদ নিয়ে অফিসকেই বাড়িঘর বানিয়েছেন। রিজভীকে এখান থেকে বের করে নিয়ে যান।

এ সময় শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী কার্যালয়ের ভেতরে গিয়ে কথা বলার অনুরোধ করলেও ছাত্রনেতারা বলেন, ভেতরে নয়, এখানেই কথা বলুন।

পরে বরকত উল্লাহ বুলু কার্যালয়ের সামনে থেকে চলে যান। আর মিলন, এ্যানী ও মোশারফ কার্যালয়ের পাশে একটি বইয়ের দোকানে বসতে চাইলে দোকানের সাটার নামিয়ে দেন সাবেক ছাত্রদল নেতারা। এরপর এ্যানী ছাত্রনেতাদের ধমক দিলে এক নেতা তাকে ধাক্কা দেন। এছাড়া বিএনপির বেশ কয়েকজন সিনিয়র নেতাকে ধাক্কাধাক্কি করে বের করে দেন ক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতারা।

সাংবাদিকদের ফজলুল হক মিলন বলেন, কমিটির বিষয়ে সিদ্ধান্ত দল থেকে দেওয়া হয়েছে। দুঃখ ও অভিমান থাকতেই পারে। আমরা সব শুনবো। আমরা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বিষয়টি জানাবো।

গত ৩ জুন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্রদলের মেয়াদোত্তীর্ণ কেন্দ্রীয় কমিটি বাতিল করা হয়। এতে বলা হয়, আগামী ৪৫ দিনের মধ্যে কাউন্সিলদের মতামতের ভিত্তিতে সংগঠনটির নতুন কেন্দ্রীয় সংসদ গঠন করা হবে।

জয়নিউজ/আরসি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...