‘ধর্মীয় অনুষ্ঠান উৎসবে পরিণত হলে তা সর্বজনীন হয়ে উঠে’

0

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, ঈদ-উল-ফিতরে আমাদের মধ্যে শান্তি-সম্প্রীতির যে বন্ধন রচিত হয়েছে, তা বছরব্যাপী ধারণ করতে পারলে আমাদের জীবন মঙ্গলময় হয়ে উঠবে।

মঙ্গলবার (১১ জুন) বিকেলে সম্মিলিত ঈদ আনন্দ উৎসব উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। নগরের থিয়েটার ইনস্টিটিউট চট্টগ্রাম মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় এ অনুষ্ঠান।

মেয়র নাছির  বলেন, রমজান মাসে সিয়াম-সাধনা এবং এবাদতের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভের মধ্যদিয়ে যে মানসিক ও আত্মিক পরিশুদ্ধি অর্জিত হয়েছে, তাকেও বছরব্যাপী ধরে রাখতে পারলে সমাজ কালিমামুক্ত হবে।

পরিষদের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সম্পাদক ও চসিক অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মানিক বলেন, বাংলাদেশের মানুষ চেতনাগতভাবে ধার্মিক। কিন্তু ধর্মান্ধ নয়। ধর্মান্ধতা মানবসভ্যতার জন্য একটি অভিশাপ। প্রত্যেক ধর্মেই রয়েছে মানবতার জয়গান।

পরিষদের প্রধান সমন্বয়কারী খোরশেদ আলমের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট কেন্দ্রীয় কমিটির শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মুহাম্মদ আজাদ খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য হাজী বেলাল আহমেদ, আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ ইছা, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য আবদুল মান্নান ফেরদৌস।

মঞ্চে সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশগ্রহণ করেন চারুতা নৃত্যকলা একাডেমি, দ্য স্কুল অব ফোক্ ডান্স, সংগীত পরিবেশন করেন নবপ্রজন্মের বেতার ও টেলিভিশন শিল্পী জয়দীপ চৌধুরী আকাশ, রিমি সিন্হা, অঙ্কিতা আচার্য, স্নেহা সেন, আলফী গাজী।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাংস্কৃতিক সংগঠক কবি সজল দাশ, ডা: আশীষ চৌধুরী, সংস্কৃতিকর্মী মুরিদুল আলম মুরাদ, শরিফ হোসাইন, মহিউদ্দিন তুষার, মোহাম্মদ ফয়সাল, ইয়াছির আরাফত বাপ্পী, ইমন সরকার, একরাসুর রহমান, ইকবাল হোসেন শাকিল, মোহাম্মদ রুবেল, শাহাদাত হোসেন ওমর, রাকিব হোসেন প্রমুখ।

জয়নিউজ/কাউছার/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...