হাটহাজারীতে জলাধার ভরাটে বাড়ছে অগ্নিঝুঁকি

0

হাটহাজারীতে জলাধার ভরাটের ফলে বাড়ছে অগ্নিদুর্ঘটনার ঝুঁকি। কিন্তু এ অবস্থায় উপজেলায় চলছে জলাধার ভরাটের হিড়িক।

এদিকে দুর্ঘটনার সময় অগ্নিনির্বাপক গাড়ি যাতায়াতের রাস্তা না রেখে নির্মিত হচ্ছে বহুতল ভবন। তবে এ বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই।

সরেজমিনে জানা গেছে, উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ১৪টি ইউনিয়নে বেড়ে চলছে জলাধার ভরাট।


এতে করে অগ্নিদুর্ঘটনার সময় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য পানির সংকট তীব্র আকার ধারণ করতে পারে। দুর্ঘটনার সময় অগ্নিনির্বাপক গাড়ি যাতায়াতের পর্যাপ্ত জায়গা না রেখে প্রশাসনের এক শ্রেণির অসাধু কর্তাদের সহযোগিতা নিয়ে নিয়মবহির্ভূতভাবে ভবন নির্মাণ করার কারণে এ ঝুঁকি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

তবে ভবন নির্মাণের সময় কর্তৃপক্ষ থেকে অনুমতি নেওয়ার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু অনুমতি দেওয়ার সময় কর্তৃপক্ষ চলাচলের সড়কের অবস্থা অনেক ক্ষেত্রে বিবেচনা না করে মোটা অংকের উৎকোচ নিয়ে এ ধরনের অনৈতিক কাজ করে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
এদিকে হাটহাজারী পৌরসভা, ফতেপুর ইউনিয়নের বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা, জোবরা, মাইজপাট্টি, ভবানীপুর, চিকনদন্ডী ইউনিয়নের উত্তর ও দক্ষিণ ফতেয়াবাদ, চৌধুরী হাট, বড়দিঘীর পাড়, খন্দকিয়া, শিকারপুর, বুড়িশ্চর, উত্তর -দক্ষিণ কুয়াইশ ও বাথুয়া প্রভৃতি এলাকার অবস্থা খুবই নাজুক।

ইতোমধ্যে এনায়েতপুরে দুইটি, সরকারহাট সংলগ্ন এলাকায় চারটি, পৌরসভায় সাত/আটটি, ফতেয়াবাদ ও চৌধুরীহাট এলাকায় ছয়/সাতটি পুরানো পুকুর ভরাট করে ভবন নির্মাণ করা হয়।

সম্প্রতি পৌরসভার হাটহাজারী বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজ সংলগ্ন এলাকায় শতবর্ষী একটি পুকুরের আংশিক ভরাট করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণের বিষয়টি অবহিত হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমীন জয়নিউজকে বলেন, পুকুর ভরাটকারীকে নোটিশ দেওয়ার সিন্ধান্ত নিলেও অবৈধভাবে জলাধার ভরাটকারীর নাম ঠিকানা সংগ্রহ করতে না পারায় মালিকের কাছে নোটিশ দিতে পারছি না।

অন্যদিকে হাটহাজারী ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন কর্মকর্তা জাকির হোসেন জয়নিউজকে জানান, পৌরসভার বিভিন্ন ভবনে জরিপ চালিয়ে বহুতল ভবনের মালিকদের প্রাথমিকভাবে অগ্নিনির্বাপণ সরঞ্জাম রাখার জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে।

পৌরসভাসহ বিভিন্ন এলাকায় নির্মিত বহুতল ভবনের অগ্নিদুর্ঘটনার সময় ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি যাতায়াতের রাস্তা না থাকায় ফায়ার সার্ভিসকর্মীদের যাতায়াত কষ্টসাধ্য।

জলাধার ভরাটের কথা স্বীকার করে বলেন, তাদের বিচারিক ক্ষমতা না থাকায় এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে পারছেন না বলেও জানান তিনি।

জয়নিউজ/তালেব/বিআর
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...