সন্দ্বীপে গুপ্তছড়া ঘাটে ৪ যাত্রীর ওপর হামলা

0

সন্দ্বীপের কুমিরা গুপ্তছড়া ঘাটে ঘাট ইজারাদারের হামলায় আহত হয়েছেন দুই প্রবাসীসহ চার যাত্রী।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) রাতে এ ঘটনা ঘটে।

হামলার শিকার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন মানিক, সোহেল, শিবলু ও শিহাদ। তারা মুছাপুরের আলীমিয়ার বাজার এলাকার মান্দিরগো বাড়ির বাসিন্দা।

জানা গেছে, সার্ভিস বোট থেকে কূলে যাওয়ার জন্য ব্যবহৃত লালবোটে অতিরিক্ত যাত্রী হিসেবে উঠতে অস্বীকৃতি জানানোয় তাদের ওপর এ হামলা হয়। সোহেল ও শিবলু দুইজন প্রবাস থেকে বাংলাদেশে এসেছেন সম্প্রতি৷ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে চট্টগ্রাম থেকে সন্দ্বীপ যান তারা। এসময় তাদের ছোট ভাই শিহাদ, পিতা মানিক, মা, সোহেলের স্ত্রী -সন্তান ও বোন সঙ্গে ছিল।

সন্দ্বীপের কূলে যাওয়ার পর সার্ভিস বোট থেকে যাত্রীদের কূলে নামানোর জন্য আসা লাল বোটে অতিরিক্ত যাত্রী ওঠায় সেই বোটে উঠতে অস্বীকৃতি জানায় সোহেল।

এসময় তিনি বোটের স্টাফদের জানান, তার সঙ্গে ছোট বাচ্চা, মা, বোন ও স্ত্রী আছে। তিনি পরের বোটে যাবেন। এই কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে স্টাফদের একজন সোহেলকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে৷

এর প্রতিবাদ করায় স্টাফরা প্রথমে সোহেলকে ধাক্কা দিয়ে সার্ভিসবোট থেকে লাল বোটে ফেলে দেয়। পরে সেখানে তাকে বেধড়ক পেটায়। সোহেলকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তার পিতা মানিক ও ছোট দুই ভাই শিবলু ও শিহাদকেও মারধর করে ঘাট ইজারাদারের লোকজন। এসময় সার্ভিস বোটে থাকা যাত্রীরা বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে ইজারাদারের লোকজন লালবোট চালিয়ে সার্ভিস বোট থেকে দূরে সরে যায়। সেখানে ওই অবস্থায় আরেক দফা মারধর করা হয় তাদের। পরে কূলের কাছাকাছি এলে একজন কর্মচারী সোহেলকে লাথি দিয়ে নদীতে ফেলে দেয়।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আরাফাত রহমান সাব্বির জয়নিউজকে জানান, হঠাৎ করেই দেখি ঘাটের লোকজন মিলে লালবোটে ফেলে একজনকে মারছে। এরপর ওই লোককে বাঁচাতে ২/৩ জন সার্ভিস বোট থেকে লাফিয়ে লাল বোটে যায়। সঙ্গে সঙ্গে তারা লালবোটটা সার্ভিস বোটের কাছ থেকে সরিয়ে নেয়। কিছুদূর নিয়ে গিয়ে নৌকা থামিয়ে নদীর মাঝখানে তাদের আবার পেটানো হয়। পরে কূলে নিয়ে লাথি মেরে বোট থেকে ফেলে দেয়।

এ বিষয়ে সন্দ্বীপ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ শরিফুল আলম জয়নিউজকে বলেন, দুপুরের দিকে ঘাটের শ্রমিকদের দ্বারা হামলার শিকার হওয়ার অভিযোগ নিয়ে চারজন থানায়এসেছিলেন। তারা ইতোমধ্যে লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ঘাট ইজারাদার এসএম আনোয়ার হোসেনকে মুঠোফোনে কল করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

জয়নিউজ/কাউছার/বিআর
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...