আইন পেশার গর্ব স্বভূপ্রসাদ

0

কারো হাতে ছিল ফুল, কারো হাতে মিষ্টি। আবার কেউ নিয়ে এলেন সুদৃশ্য কেক! না, কোনো জন্মদিন নয়। নয় কোনো আনুষ্ঠানিক অনুষ্ঠানও। এ এক অন্যরকম অনুষ্ঠান। যে অনুষ্ঠান নবীন আইনজীবীদের কাছে গর্বের, প্রেরণার।

গল্পটা একটু শুরু থেকে শুরু করা যাক। অ্যাডভোকেট মুহিত, অ্যাডভোকেট শুভ্রা, অ্যাডভোকেট জুয়েলসহ কয়েকজন নবীন আইনজীবী কাউকে কিছু না জানিয়ে নিয়ে এলেন সুদৃশ্য এক কেক। সঙ্গে সমুচা, কেকসহ হরেক রকমের খাবার। এরপর জানালেন আসল রহস্য- তাঁদের স্যার অ্যাডভোকেট স্বভূপ্রসাদ বিশ্বাস আইন পেশায় ৪৬ বছর পূর্ণ করেছেন। স্যারকে সারপ্রাইজ দিতেই চুপিসারে এ আয়োজন।

তবে চুপিসারের এ আয়োজন শেষ পর্যন্ত রূপ নেয় অনন্য এক আয়োজনে। নবীন আইনজীবীদের আয়োজনের ফেইসবুক পোস্ট দেখে একে একে ছুটে আসেন বার কাউন্সিলের সাবেক সদস্য অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবি সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সুস্বপন কৃষ্ণ বিশ্বাসসহ সিনিয়র আইনজীবীরা।

যারা হঠাৎ এ আয়োজনে আসতে পারেননি তাদের অনেকেই মুঠোফোনে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন স্বভূপ্রসাদকে। আবার অনেক সিনিয়র আইনজীবী অনুযোগ করেছেন নবীন আইনজীবীদের কাছে, এ আয়োজনের কথাটি কেন তাঁদের আগে জানানো হয়নি।

আইন পেশায় সততা ও দক্ষতার সঙ্গে দীর্ঘ ৪৬ বছর পাড়ি দেওয়ায় দেশ-বিদেশের অনেক সিনিয়র আইনজীবী শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চট্টগ্রামের আইন পেশার গর্ব আইনজীবী স্বভূপ্রসাদ বিশ্বাসকে। গুণী এ আইনজীবী সম্পর্কে সবচেয়ে চমৎকার কথাটি বলেছেন প্রবীণ আইনজীবী ইব্রাহীম হোসেন চৌধুরী বাবুল। তিনি জয়নিউজকে বলেন, স্বভূপ্রসাদ বিশ্বাস সম্পর্কে এক বাক্যে বলতে গেলে শুধু একটি কথায় বলব- চট্টগ্রামের আইনজীবীদের মধ্যে তিনি একজন পণ্ডিত ব্যক্তি।

প্রসঙ্গত, অ্যাডভোকেট স্বভূপ্রসাদ বিশ্বাস ১৯৭৩ সালে আইন পেশায় যুক্ত হন। দীর্ঘ ৪৬ বছরে তিনি গণহত্যা মামলা, তানিয়া হত্যা মামলাসহ অসংখ্য আলোচিত মামলা সফলতার সঙ্গে পরিচালনা করেন।

লেখক: নির্বাহী সম্পাদক, জয়নিউজ

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...