বন্যায় সতর্কতা এবং করণীয়

0

বন্যা আসে, বন্যা যায়। তাই বন্যার আগেভাগে নিজেদের প্রস্তুত করে রাখা ভাল। বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতি হয় গ্রামাঞ্চলে। যার প্রভাব পড়ে শহরসহ সারাদেশেই। গ্রামাঞ্চলের মানুষদের নানান উপায়ে এই সময়ে সচেতন করে রাখা উচিত।

বন্যা ও বন্যা পরবর্তী সময়ে শাক-সবজি, শস্য, গবাদিপশু, হাঁস-মুরগীসহ নিজেদের পরিবার পরিজন ও আবাসস্থল রক্ষায় চরম দুশ্চিন্তায় পড়ে যান গ্রামের মানুষ। এমন পরিস্থিতিতে কী করবেন তা সংক্ষেপে উল্লেখ করা হলো-

বন্যায় যদি বীজতলা ডুবে যায়, তাহলে নানানভাবে চারা উৎপাদনের প্রশিক্ষণ নিয়ে রাখা ভালো। যেমন – কলাগাছের ভেলা বানিয়ে সেই ভেলার উপর কাদামাটির প্রলেপ দিয়ে বীজ ছিটিয়ে দেয়া যেতে পারে। আর যদি বীজতলায় কোনো চারা আগে থেকেই থাকে তাহলে মাটিসহ তুলে কোনো উঁচুস্থানে রাখতে হবে।

বন্যার পানি বেড়ে যাবার সঙ্গে সঙ্গে ড্রাম, টব, চাড়ি বা অন্য কোনো বড় পাত্রে মাটিসহ গাছের চারা রোপণ করে উঁচুস্থানে রাখতে হবে।

বন্যায় মাছ চাষের বরাদ্দকৃত জায়গার চারপাশে পানি থেকেও কয়েক ফুট উঁচু জাল দিয়ে রাখতে হবে।

বন্যায় যদি কোনো গবাদিপশু মারা যায়, তাহলে সেই মরা পশু পানিতে ভাসিয়ে না দিয়ে মাটিতে পুঁতে ফেলার ব্যবস্থা করতে হবে।
বন্যার সময় হাঁস –মুরগীর কৃমির প্রকোপ বাড়ে, তাই আগেভাগে এসবের ওষুধ খাওয়াতে হয়। তবে সবচেয়ে উত্তম কাজ, বন্যার সময় হাঁস-মুরগি বিক্রি করে ফেলা।

গাছের যত্নে গাছের গোড়ায় মাটি দিতে হয়, চারাগাছ হলে খুঁটি দিতে হয়, বন্যার পর রাসায়নিক সার ও জৈব সার প্রয়োগ করতে হয়।
বন্যার পানি চলে যাওয়ার পরও দেখা দেয় ডায়রিয়াসহ নানা রোগব্যাধি। এ জন্য খাওয়ার স্যালাইনসহ অন্যান্য ওষুধের সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। পরিস্থিতি খুব খারাপ হলে বন্যার্তদের আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসতে হবে।

জয়নিউজ/বিআর
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...