খাগড়াছড়িতে ৮৩ ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে পাঠদান

0

খাগড়াছড়ির নয় উপজেলার ৮৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান। ফলে যেকোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। এরকম অবস্থায় শিক্ষার্থী-অভিভাবকসহ এলাকাবাসী অবিলম্বে ভবন সংস্কার কিংবা নতুন ভবন নিমার্ণের দাবি জানিয়েছেন।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ৮৩টি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের মধ্যে সদরে ২৪টি, মাটিরাঙ্গায় ১৮টি, পানছড়িতে ১১টি, মহালছড়িতে ১৫টি, রামগড়ে ৭টি, লক্ষ্মীছড়িতে ৪টি, দীঘিনালায় ৫টি এবং মানিকছড়ি উপজেলায় ১০টি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ।

খাগড়াছড়ি সদরের কমলছড়িমুখ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সিরাজুল ইসলাম জয়নিউজকে বলেন, বর্তমানে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে শ্রেণি কার্যক্রম চলছে। গত দশ বছর ধরে বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত ও মৌখিক যোগাযোগ করেও কাজ হয়নি। সমস্যা রয়ে গেছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নুরুল আবছার জয়নিউজকে বলেন, কয়েক বছর আগে সরকারিকরণ হওয়া বিদ্যালয়গুলো এখনো পাকা ভবন পায়নি। টিনশেডের ঘরে চলছে পাঠদান।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা শিক্ষা অফিসার কৃষ্ণ লাল দেবনাথ জানান, তার এলাকায় বাঁশের বেড়ার ১৮টি স্কুল মেরামতের জন্য ৪০ হাজার টাকা করে পাওয়া গেছে। এর বাইরে পাকা ভবন সংস্কার করতে ১৬টি বিদ্যালয়ের জন্য দেড়লাখ টাকা করে বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফাতেমা মেহের ইয়াসমিন জয়নিউজকে বলেন, সম্প্রতি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের একটি তালিকা করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। তবে সাড়া পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে নির্দেশনা পেলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

জয়নিউজ/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...