নৌকা করে ‍সুইডেন থেকে নিউইয়র্কে কিশোরী গ্রেটা!

0

টানা ১৫ দিন নৌকায় চেপে সুইডেন থেকে নিউইয়র্ক পৌঁছেছেন এক কিশোরী। তাঁর নাম গ্রেটা থুনবার্গ। সুইডেনের এই কিশোরী জলবায়ু নিয়ে আন্দোলনকারী। আগামী মাসে তিনি রাষ্ট্রপুঞ্জের একটি সম্মেলনে যোগ দেবেন।

সুইডেন থেকে বিমানে নিউইয়র্ক পৌঁছনো অনেক সহজ হলেও ওই পথে যাননি গ্রেটা। যাত্রাপথে এতটুকু কার্বন-দূষণ যাতে না হয়, সেজন্য পরিবেশসচেতন কিশোরী বেছে নেন পাল তোলা বড় নৌকা। সৌর প্যানেল থেকে সৌরবিদ্যুৎ নিয়ে এবং জলের নিচে টারবাইন ঘুরিয়ে জলবিদ্যুতের শক্তিতে ওই জলযানকে চালানো হয়।

আটলান্টিক পেরিয়ে বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) যখন তাঁর নৌকা ব্রুকলিনের কোনি দ্বীপে পৌঁছায়, তখন সাংবাদিক আর শুভাকাঙ্ক্ষীর ভিড়।
সাড়ে পাঁচ হাজার কিলোমিটারের পথ পেরিয়ে আসা কিশোরীকে ঘিরে ছবি তোলার ধুম। সবাই চিৎকার করে স্বাগত জানিয়েছেন গ্রেটাকে। অবশ্য পৌঁছনোর আগে বুধবারই গ্রেটা একটি দূরের আলোমাখা ঝাপসা ছবি টুইটারে পোস্ট করে লিখেন, ‘‘ল্যান্ড!!! দ্বীপের আলো, আর অদূরেই নিউইয়র্ক সিটি।’’

তীরে পৌঁছনোর আগেই তাঁর নৌকার পাশে হাজির হয় রাষ্ট্রপুঞ্জের ১৭টি ছোট নৌকা। কার্বন-দূষণ পুরোপুরি কমাতে যে কিশোরী এত উদগ্রীব, তার মার্কিন মুলুকে পা রাখার খবরে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অবশ্য এখনো কোনো প্রতিক্রিয়া জানাননি।

গত ১৪ আগস্ট দক্ষিণ ইংল্যান্ডের প্লাইমাউথ থেকে ছেড়েছিল গ্রেটার নৌকা। কোনি দ্বীপ থেকে অভিবাসন সংক্রান্ত প্রক্রিয়া পেরিয়ে গ্রেটার পৌঁছনোর কথা ম্যানহাটনের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের কাছে নর্থ কোভ মেরিনায়।

১২ বছর বয়সে অ্যাসপারগার সিনড্রোম (সামাজিকভাবে যোগাযোগ স্থাপনে অসুবিধা) ধরা পড়েছিল এই কিশোরীর। ২০১৮ সালের আগস্ট থেকে তাঁর আন্দোলন জোরদার হয়। প্রথমে স্কুলে এবং তারপর সুইডিশ পার্লামেন্টের বাইরে বসে জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে বার্তা দেওয়া শুরু করেনি তিনি। সারা বিশ্বের পড়ুয়াদের পাশে পেয়ে জোরদার হয় তাঁর আন্দোলন।

জয়নিউজ

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...