ড. রামপ্রসাদকে চসিকের সংবর্ধনা

0

‘আঁই চাটগাঁইয়া পোয়া। ১৯৫৫ সালে পড়ালেখা গরিবারলাই আঁই কলকাতাত যাই। এরপর বিলাত। আর ন আই দেশত। আজুয়া ৬৪ বছর পর দেশত আসসিযে। আঁই ইংল্যান্ডত থাকিলেও ইংরেজি নঅ শিখি। প্রয়োজনে ইংরেজিত লেখি। আঁরা বাসাতও চাটগাঁইয়া ভাষায় কথা কই।’

৬৪ বছর পর দেশে এসে সংবর্ধিত হয়ে এভাবেই নিজের মনের কথা বলছিলেন প্রফেসর ড. রামপ্রসাদ সেনগুপ্ত রবিন।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে চট্টগ্রাম সিনিয়র্স ক্লাব মিলনায়তনে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) এক নাগরিক সংবর্ধনার আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। এসময় মেয়র ড. রামপ্রসাদের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন।

সংবর্ধনায় মেয়র বলেন, নিউরো সায়েন্টিস্ট ও সার্জন প্রফেসর ড. রামপ্রসাদ নিজের মেধা, যোগ্যতা ও দক্ষতায় বিশ্বকে জয় করতে সক্ষম হয়েছেন। এই বরণ্যে চিকিৎসক তাঁর জম্মভূমির মাটি, মানুষ ও দেশকে প্রচণ্ডভাবে ভালবাসতেন। তার এই ভালবাসার শেকড় অনেক গভীরে। ৬৪ বছর দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন থাকলেও জম্মভূমি চট্টগ্রাম এবং শৈশবকালের সঙ্গীদের কথা তিনি কখনো ভুলেননি।

তিনি বলেন, ড. রামপ্রসাদ বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের সুনাম বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছেন। মানবতার সেবায় নিজকে আত্ম নিয়োগ করা এই মানুষটিকে সংবর্ধিত করতে পেরে নিজকে ধন্য মনে হচ্ছে। মা, মাটি ও দেশকে কিভাবে ভালবাসসতে হয়, শ্রদ্ধা জানাতে হয়- তা ড. রামপ্রসাদের কাছ থেকে আমরা শিক্ষা পাই। দেশের মানুষ তার কাছে ঘরের মানুষের মতো। দেশের মানুষকে তিনি ভালবাসতেন আপন স্বজনের মত। তার মতো নিরহংকারকারী মানুষের কাছ থেকে শিক্ষনীয় বিষয়। বৃক্ষ বড় হয় শেকড়কে আকড়ে ধরে।

ড. রামপ্রসাদ বলেন, আমি চট্টগ্রামের ভূমিপুত্র। ফতেয়াবাদ হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ব্রজ সাহার স্মৃতি মনে পড়ে। একদিকে পাহাড়, অন্যদিকে কর্ণফুলী- এমন সৌন্দর্য বিশ্বের আর কোথাও দেখিনি। আমার জন্মস্থান, স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, সববন্ধু, স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী, ডোনার, সহকর্মীদের ঋণ আমি কখনো শোধ করতে পারব না।

বক্তব্যে তিনি সকল শুভানুধ্যায়ী, বন্ধুবান্ধব ও পরিচিতজনের সকলের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

সভায় সভাপতিত্ব করেন চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সামসুদ্দোহা। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ।

এতে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহসেন উদ্দিন আহমদ, চমেকের অধ্যক্ষ সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, চুয়েটের ভিসি রফিকুল ইসলাম, চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী একেএম ফয়েজুল্লাহ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চসিক প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার সেলিম আকতার চৌধুরী ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজের ডা. শাহ মোহাম্মদ জহির।

এতে প্রফেসর ড. রামপ্রসাদ সেনগুপ্ত রবিনের সফরসঙ্গী নিউরোলোজিস্ট ঋষি কুমার, ডা. আশিষ দত্ত, ডা. দিপেন্দ্র প্রধান, সুরদিপ দে, ডা. গৌরী দাশ, তুষার চক্রবর্তী এবং ঢাকা বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ডা. আহসান হাবীব, ডা. তৌহিদুল ইসলাম, ডা. সেলিম শাহী, ডা. মোরশেদ বাকী ও আরিফুল উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া এতে চট্টগ্রাম কলেজের অধ্যক্ষ আবুল হাসান, প্রফেসর ডা. এল এ কাদেরী, ডা. বাসনা মুহুরীসহ নগরের বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের প্রধান এবং চসিকের কাউন্সিলর, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর, চসিকের প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমদ, সিটি করপোরেশন মেমন মাতৃসদন হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. প্রীতি বড়ুয়াসহ চসিক ডাক্তার এবং করপোরেশনের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

জয়নিউজ/পার্থ/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...