স্বেচ্ছাশ্রমে বালির বাঁধ, স্থায়ী ব্যবস্থা কবে?

0

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ রক্ষা করতে বালিভর্তি জিও ব্যাগ ব্যবহার করছেন স্থানীয়রা। দ্বীপের আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের কাহার পাড়া অংশে ২০০ মিটার বাঁধ মেরামত করা হচ্ছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান ও জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতায় স্বেচ্ছাশ্রমে চলছে এ কর্মযজ্ঞ। স্থানীয়দের দাবি সমস্যা সমাধানে প্রয়োজন স্থায়ী বেড়িবাঁধের।

স্থানীয়রা জানান, বিগত দুই বছর ধরে কাহারপাড়া, তেলিপাড়া, বায়ুবিদ্যুৎ এলাকা, পশ্চিম তাবলরচর, কুমিরারছড়া জেলেপাড়া এলাকায় প্রায় তিন কিলোমিটার বাঁধ ভাঙা ছিল। গত আগস্ট মাসে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বারদের নিজস্ব অর্থায়নে ভাঙন ঠেকাতে বাঁধ মেরামতের কাজ করছেন এলাকাবাসী। এ পর্যন্ত কুমিরারছড়া জেলেপাড়া, তারলরচর, বায়ুবিদ্যুৎ এলাকায় বাঁধের মেরামত কাজ সম্পন্ন হয়েছে। জিও ব্যাগে বালি ভর্তি করে প্রায় ২০০ মিটার বাঁধ মেরামতের কাজ এখন শেষের পথে।

কিরণপাড়া এলাকার বাসিন্দা নুরুল আবছার জানান, এলাকায় বিগত এক যুগ আগে সিসি ব্লক দিয়ে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করা হয়। কিন্তু ঐ বেড়িবাঁধ নির্মাণের সময় ঠিকাদার প্রয়োজনের তুলনায় কম উচ্চতায় বাঁধ নির্মাণ করার ফলে অমাবস্যা ও পূর্ণিমার জোয়ারের পানি বেড়িবাঁধ উপচে লোকালয়ে ঢুকে ব্যাপক এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। একপর্যায়ে বেড়িবাঁধ ভেঙে যায়। বর্তমানে জিও ব্যাগের বাঁধ দিয়ে পানি ঠেকানো হচ্ছে। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন স্থায়ী বেড়িবাঁধ।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নুরুচ্চাফা বলেন, এ ইউনিয়নে বাঁধ মেরামতের কাজ সম্পন্ন করার জন্য কুতুবদিয়া-মহেশখালী আসনের সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক ২৫ মিটার করে ২০টি জিও ব্যাগ দিয়েছেন। বর্তমানে ঐ জিও ব্যাগে বালিভর্তি করে জোয়ার ঠেকাতে বাঁধ দেওয়া হচ্ছে।

জয়নিউজ/পিডি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...