চসিকের নির্মাণ সামগ্রী পরীক্ষাগার উদ্বোধন

0

নগরের সাগরিকায় সিটি করপোরেশন স্টোর এলাকায় সর্বাধুনিক নির্মাণ সামগ্রী পরীক্ষণ পরীক্ষাগার স্থাপন করেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন(চসিক)।

রোববার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এই পরীক্ষাগার উদ্বোধন করেন।

এসময় রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহেসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল, চসিক প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমেদ, নবাগত প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল সোহেল আহমেদ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবু ছালেহ, কামরুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, মনিরুল হুদা, সুদীপ বসাক, নির্বাহী প্রকৌশলী, সহকারী প্রকৌশলী, উপসহকরী প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

সাগরিকা সিটি করপোরেশন স্টোর এরিয়ায় ২ হাজার বর্গফুট জায়গা নিয়ে এই ল্যাবটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ল্যাবের যন্ত্রপাতি আমদানীসহ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এ ভবন নির্মাণে চসিকের ব্যয় হয় প্রায় ২ কোটি টাকা। ল্যাবের যন্ত্রপাতি ইংল্যান্ড থেকে আমদানী করা হয়েছে।

এল্যাবে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমপ্রেসার মেশিন, ইমপেক্ট ক্রেস্টার, এগ্রিগেট ক্রাসিং মেশিন, এগ্রিগেট ইমপেক্ট ভ্যালু যন্ত্রাংশ, কমপেক্ট কোর ড্রিল মেশিন, লস এনজেন্স এবরেশন মেশিন, চালনী, মটার মিক্সাচার, অটোমেটিক ভাইকেট মেশিন, ফিল্ড সিবিআর মেশিন, প্রোক্টর কমপেকশন মেশিন, অটোমেটিক পেনট্রোমিটার, রিং এন্ড বল মেশিন, ইলেকট্রনিক ব্যালেন্স, কনক্রিট মেশিন, ও সেন্ডকোন ইত্যাদি মেশিন রয়েছে। এ মেশিনগুলোর মাধ্যমে সিলিন্ডার, পাথর টেস্ট ও ইটের টেস্ট, বস্তুর ওজন মাপকযন্ত্র (পানি ও বালি), আমেরিকান ও ব্রিটিশ পদ্ধতিতে পাথর পরীক্ষা, পাথর ও বালির গ্রেডিং বেরকরণ, বালি, সিমেন্ট পানি দিয়ে মিক্সার করে ছোট ছোট ব্লক প্রস্তুতকরণ, যা পরবর্তীতে মেশিনে টেস্ট করা হয়ে থাকে। এ ছাড়া আরো রয়েছে সিমেন্টে জমাট বাঁধার সময় নির্ধারণ, ফিল্ডে মাটির গুণাগুণ পরীক্ষা, বিটুমিন, মৃত্তিকা ও ম্যাটেরিয়াল টেস্ট ও বালির গুণাগুণ পরীক্ষা, বিভিন্ন রেঞ্জের পরিমাপক । চট্টগ্রামে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে থাকলেও এ ধরণের আধুনিক যন্ত্রপাতি সম্বলিত কোনো পরীক্ষাগার এ নগরীতে নেই। এ প্রথম চসিকে এ ধরণের একটি আধুনিক ল্যাব স্থাপন করেছে। এর মাধ্যমে নগরের সরকারি বেসরকারি সকল প্রতিষ্ঠান নির্মাণসামগ্রী ব্যবহারের ক্ষেত্রে সুফল ভোগ করতে পারবে।

উদ্বোধনকালে সিটি মেয়র বলেন, এ ল্যাবের অভাবে চসিক নির্মাণ সামগ্রী বাহির থেকে পরীক্ষা করতে হতো। এতে সময় ও অর্থের অপচয় হতো। এই ল্যাব প্রতিষ্ঠার মধ্যদিয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সময় ও অর্থ রোধ হবে। এছাড়া নির্মাণ সামগ্রী নিয়ে নগরবাসীর মধ্যে অনেক মুখরোচক কথা বলা হতো। এল্যাব হওয়ায় নগরবাসীর মধ্যে সেই বিভ্রান্ত দূরীভূত হবে।

এল্যাব প্রতিষ্ঠার কথা উল্লেখ করে মেয়র বলেন, এ ল্যাব চসিক ব্যবহার করবে তা নয়, চসিকের বাইরে যেকোনো সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তাদের নির্মাণ সামগ্রী পরীক্ষা করতে পারবে।

তিনি নগরীর সকল সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারের পূর্বে এ ল্যাব থেকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ব্যবহারের আহ্বান জানান। উদ্বোধনের পর মেয়র ল্যাবের যন্ত্রাংশসমূহ ঘুরে ঘুরে প্রত্যক্ষ করেন।

জয়নিউজ/আরডি/বিআর

সরাসরি আপনার ডিভাইসে নিউজ আপডেট পান, এখনই সাবস্ক্রাইব করুন।

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...