মাদকাসক্ত ব্যক্তি সমাজ ও দেশের জন্য অভিশাপ: চসিক মেয়র

0

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, বর্তমান সময়ে মারাত্মক সমস্যারগুলোর মধ্যে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতি অন্যতম। দেশের বিভিন্ন স্তরে প্রায় ৭০ লাখ মাদকসেবী রয়েছে। দিন দিন এর ব্যাপ্তি ঘটছে। মাদকাসক্ত ব্যক্তি পরিবার সমাজ ও দেশের জন্য অভিশাপ। এই অভিশাপ থেকে বেরিয়ে আসতে হলে পরিবারকে মাদকমুক্ত রাখতে হবে।

নগরীর বান্ডেল এস কলোনী প্রাথমিক বিদ্যালয় চত্বরে সন্ত্রাস, মাদক, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এসব কথা বলেন।

শুক্রবার (২৫ অক্টোবর ) সকালে বান্ডেল রোড হরিজন সম্প্রদায়ের উদ্যোগে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

ছাত্র পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক উত্তম দাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন আন্দরকিল্লা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জহর লাল হাজারী।

এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসম্পাদক ইয়াছির আরাফাত, বান্ডেল হরিজন সমাজের সভাপতি মায়াদিন সর্দার ও তারাচরণ সেবাশ্রমের সভাপতি রতন দাশ।

এছাড়াও কাউন্সিলর জহুরুল আলম জসীম, সাবেক ছাত্রনেতা আবদুল্লাহ আল মামুন, মকসুদ আলী, নাসির উদ্দিন কুতুবী, জালাল আহমদ রানাসহ হরিজন সম্প্রদায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

হরিজন সম্প্রদায়ের মা’দের উদ্দেশে মেয়র বলেন, আপনারাই পারেন সমাজকে বদলে দিতে। মাদকাসক্ত, বিপথগামী স্বামী, ভাইকে বোঝান, মাদকের নেশায় যে টাকা ব্যয় হচ্ছে তা দিয়ে নিজেরা পুষ্টিকর খাবার খেতে পারেন। বিনামূল্যে কি নেশা পায়? যারা মাদকাসক্ত আছেন সংশোধন হয়ে যান। আপনারা চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে না পারলে, আমার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। আমি ব্যক্তিগতভাবে কিংবা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে মাদকাসক্তদের নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি ও চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ, স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে সহযোগিতা করব।

তিনি হরিজন সম্প্রদায়ের নেতাদেরকে মাদকাসক্তদের তালিকা দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়ে বলেন, আমি আর্থিকভাবে সহযোগিতা করব, পুরো চিকিৎসার ব্যয় আমরা বহন করব। আমি চাই না কাউকে পুলিশ ধরে নিয়ে যাক, জেল খাটুক। আমি জোর করে কিছু করার পক্ষে নই।

মেয়র আরো বলেন, সম্প্রতি হরিজন সমাজের কেউ কেউ উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করে বিদেশে লেখা-পড়া করতে যাচ্ছে। আবার কেউ উন্নত পেশায়ও সংযুক্ত হচ্ছে। এটা বর্তমান সরকারের সকল সম্প্রদায়ের প্রতি সমনীতির সুফল। আমরা চাই তারা আগামীতে আরো উন্নত সমাজ গঠনে নিজেদের পরিবর্তন করবে।

জয়নিউজ/বিআর

সরাসরি আপনার ডিভাইসে নিউজ আপডেট পান, এখনই সাবস্ক্রাইব করুন।

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...