রোহিঙ্গাসহ পৃথিবীর আলো দেখতে পেল ১৩ শিশু

0

রোহিঙ্গাসহ কক্সবাজারের স্থানীয় ১৩ শিশু পৃথিবীর আলো দেখতে পেয়েছেন। চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতালে তাদের সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়েছে।

সোমবার (২৮ অক্টোবর) ৯ রোহিঙ্গা ও ৪ জন স্থানীয় শিশু স্বাভাবিক দৃষ্টিশক্তি ফিরে পায়। পাশাপাশি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিনামূল্যে ঔষধসহ তাদের যাবতীয় সেবা প্রদান করে। এর আগে তাদের ২৭ অক্টোবর অস্ত্রোপচার শুরু হয়।

রোহিঙ্গা শিশুরা হলো- আবু তাহেরের ছেলে মো. এরফান (১২), মো. ইউনুছের ছেলে মো. ছাদেক (২), আমির আলীর ছেলে লালু (৩.৫), সুলতানের ছেলে এনায়েত উল্ল্যাহ (১০), এয়াসের কন্যাশিশু শহিদা বেগম (২) ও তাসমিনা তারা (৬), ইলিয়াসের ছেলে শহিদ (১৪), মুকবুল আহম্মদের ছেলে আতাউল্লাহ (১২), নুর ইসলামের ছেলে সালমান (৩)।

স্থানীয় শিশুরা হলো- রাসেল আহমদের কন্যা জেসি মনি (১৩), আবু জাবেরের ছেলে রফিক আলম (১১), রসিদ আহমদের ছেলে তারেক (৭), কামাল হোসেনের ছেলে রবিউল (১০)।

রোহিঙ্গা শিবিরের আশপাশে হাসপাতালে চোখের অস্ত্রোপচারের ব্যবস্থা না থাকায় চক্ষু হাসপাতালে এই কার্যক্রম চালু হয়।

এসব শিশুদের অস্ত্রোপচার করেন চক্ষু হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মেরাজুল ইসলাম ও ডা. নাসিমুল হগনি চৌধুরী। আর সহযোগিতা করেন কিউসিভির প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর নিলুফার ইয়াসমিন, এমআইএস কনসালটেন্ট মকবুল হোসেন, কক্সবাজার বায়তুশ শরফ হাসপাতালের ম্যানেজার (অপারেশন এন্ড প্রোগাম) শহিদ উদ্দিন মাহমুদ, অপটোমেট্টি আবদুল আউয়াল (কাজল) ও স্টাফ প্রবাল দে।

কাতার ফান্ড ফর ডেভেলপমেন্টের সহায়তায় অরবিস ইন্টারন্যাশনাল বাস্তবায়িত ‘কাতার ক্রিয়েটিং ভিশন এক্সপান্ডিং আই কেয়ার ইন সাউথ ইস্ট বাংলাদেশ’ প্রকল্পের আওতায় অস্ত্রোপচারে টেকনিক্যাল সার্পেট দিচ্ছে চট্টগ্রাম চক্ষু হাসপাতাল।

প্রসঙ্গত, প্রকল্পের আওতায় ইতোমধ্যে প্রায় ৮৮ হাজার রোহিঙ্গা ও স্থানীয় শিশুর চোখ পরীক্ষার পাশাপাশি প্রায় ১ হাজার শিশুকে চশমা প্রদান করা হয়।

জয়নিউজ/কাউছার/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...