চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে ক্রেতা নেই, আছে আতঙ্ক

0

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে ক্রেতাশূন্য হয়ে পড়েছে দেশের বৃহত্তম ভোগ্যপণ্যের পাইকারি বাজার চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে। প্রতিদিনের মতো কোনো বেচাকেনা হয়নি শনিবার (৯ নভেম্বর)। ব্যবসায়ীদের মনে ভর করে আছে জলোচ্ছ্বাসের আতঙ্ক।

খাতুনগঞ্জ ট্রেড অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ছগীর আহমেদ জয়নিউজকে বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের সতর্কসংকেত এলেই চরম আতঙ্কে সময় কাটে খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীদের। কখন গুদাম-দোকানে জলোচ্ছ্বাসের পানি ঢুকে পড়ে পানি এ নিয়ে এখন উদ্বিগ্ন ব্যবসায়ীরা।

তিনি আরো বলেন, শুধু খাতুনগঞ্জ নয়, চট্টগ্রামে বিভিন্ন জায়গায় ব্যবসায়ীদের অনেক গুদাম রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে ক্ষতির শঙ্কায় রয়েছেন এসব গুদাম মালিকও।

খাতুনগঞ্জ আড়তদার সাধারণ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাবেক সভাপতি সোলেমান বাদশা জয়নিউজকে বলেন, প্রতিদিনের মতো খাতুনগঞ্জে দোকান খোলা হয়েছে। তবে কোনো বেচাকেনা নেই। অবশ্য এ মুহূর্তে বেচাকেনা নিয়ে ব্যবসায়ীদের কোনো টেনশনও নেই। কারণ এখন সবার টেনশনের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল।

তিনি আরো বলেন, ২০১০ সালে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর কারণে ব্যবসায়ীদের ক্ষতি হয়েছিল প্রায় ২০০ কোটি টাকা। রোয়ানুর প্রভাবে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে যায় খাতুনগঞ্জের বেশিরভাগ এলাকা। পানি ঢুকে পড়ে গুদাম ও দোকানে। সেই আতঙ্কে আবার ব্যবসায়ীরা। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলর প্রভাবে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসে তলিয়ে যেতে পারে খাতুনগঞ্জের বেশিরভাগ এলাকা।

সরেজমিন কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিদিন এই সময় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ব্যবসায়ীরা আসতেন পণ্য কিনতে। তবে ঘূর্ণিঝড় আতঙ্কে আজ (শনিবার) কেউ পণ্য কিনতে আসেননি। চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে এখন কোনো ক্রেতা নেই, আছে শুধু আতঙ্ক।

জয়নিউজ/কাউছার

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...