ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়েও অপরাজিত পেঁয়াজ

0

বিদ্যুৎগতিতে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। কোনো কিছুতেই সেই দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারছে না সরকার। সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে পেঁয়াজ । পেঁয়াজের ঝাঁজ যেন কিছুতেই কমছে না। দিন দিন বাড়তেই আছে পেঁয়াজের দাম এরই ধারাবাহিকতায় এবার পেঁয়াজের দাম কেজি প্রতি ডাবল সেঞ্চুরিতে গিয়ে ঠেকেছে।

বুধবার (১২ নভেম্বর) নগরের খুচরা বাজারে প্রতিকেজি দেশি পেঁয়াজ ১৭০ টাকা থেকে ১৮০ টাকায় বিক্রি হলেও  বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর)  কোথাও কোথাও তা ২০০-২২০ টাকা দাম চাওয়া হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার  সকালে নগেরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন দৃশ্য দেখা যায়।

আগের দিনের ১৭০ টাকার দেশি পেঁয়াজ গিয়ে ঠেকল কেজিতে ২০০-২২০ টাকা ।  খাতুনগঞ্জে মিয়ানমার ও চায়না পেঁয়াজ প্রতি কেজি ১১০-১২০ টাকা আর  রিয়াজউদ্দীন বাজারে ২০০-২২০ টাকা করে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে।

রিয়াজউদ্দীন বাজারে পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে বিক্রেতার তর্কে জড়িয়ে পড়েন অনেক ক্রেতা।

বিশ্বজিত  নামের একজন ক্রেতা।বিক্রেতাকে প্রশ্ন করেন, গত মঙ্গলবার ১৪০ টাকায় পেঁয়াজ কিনেছি। ২ দিনে ৬০ টাকা বাড়ার কারণটা কী?

দাম আরো বাড়বে উল্লেখ করে পেঁয়াজ বিক্রেতা জবাবে বলেন, আপনি শিক্ষিত মানুষ। পেঁয়াজের সরবরাহ না থাকলে, দাম বাড়বে না কমবে; তা চিন্তা করে দেখেন।

জানা যায়,  ভারত থেকে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর দিয়ে ৬৬ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি পাওয়া গেলেও এখন পর্যন্ত মাত্র ৫ হাজার টন পেঁয়াজ দেশে এসেছে। বাকি পেঁয়াজ এখনো আসেনি। এছাড়া ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুলের’ কারণে গত কয়েক দিন বন্দর থেকে পেঁয়াজ খালাস ব্যাহত হয়েছে। এর প্রভাব পড়েছে পেঁয়াজের বাজারে। ফলে নতুন করে দাম বেড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় এই পণ্যটির।

এব্যাপারে জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন জয়নিউজকে বলেন যারা পেঁয়াজের বাজার অস্থিতিশীল করছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর  ব্যবস্থ নেওয়া্ হবে। ব্যবসায়ীরা যেভাবে পেঁয়াজের দাম বাড়াচ্ছে সেই ভাবে পেঁয়াজ দাম হওয়ার কথা নয়।

খাতুনগঞ্জে পেঁয়াজ ব্যবসায়ি মো. ইদ্রিস জয়নিউজকে বলেন সত্যিকার অর্থেই বাজারে পেঁয়াজের প্রচুর সংকট রয়েছে। সেই কারণে সরকার নানা অভিযান চালানোর পরও দাম কমেনি। কয়েকদিন আগে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে আমদানি করা পেঁয়াজ সরবরাহে সমস্যা হয়েছে। আর সেই কারণেই এখন বাজারের এই পরিস্থিতি। যে পেঁয়াজ বাজারে আসেছে তা বিভিন্ন জেলায় চলে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন,  খুচরা বাজারে যেভাবে পেঁয়াজে দাম নিচ্ছে সেভাবে পেঁয়াজের দাম বাড়েনি। যারা অতিরিক্ত দাম নিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

পেঁয়াজের এমন লাগামহীন দামে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ক্রেতারা। পেঁয়াজের বাজার কারা নিয়ন্ত্রণ করছেন সেই প্রশ্ন সাধারণ মানুষের। মিয়ানমার থেকে ৪২ টাকা দরে পেঁয়াজ কেনার পরেও দেশে কোন অজুহাতে এত দাম সে প্রশ্নও তুলছেন তারা।

এ বিষয়ে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)কেন্দ্রিয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন জয়নিউজকে বলেন, ব্যবসায়ীরা সবসময়ই সুযোগসন্ধানী। অতি মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা সুযোগ পেলেই তা লুফে নেন। সেটি যৌক্তিক না অযৌক্তিক, সে বিষয়ে মাথা ঘামান না-এটি ঘোর অন্যায়। ভোক্তাদের সঙ্গে প্রতারণা করছেন তারা।

জয়নিউজ/পিডি
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...