কোচিংয়ের নামে জঙ্গি সংগঠনে স্কুল-কলেজের ছাত্ররা

0

বাবা-মাকে কোচিংয়ে কথা বলে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহরীরের কাজে যাচ্ছে স্কুল ও কলেজ ছাত্ররা। এমন তথ্য জানিয়েছেন সিএমপি অতিরিক্ত কমিশনার আমেনা বেগম।

শনিবার ( ২৩ নভেম্বর) দামপাড়া চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি।

তিনি বলেন, আমরা যে ১৫ জনকে আটক করেছি তাদের মধ্যে ১১ জনের বয়স ১৮ থেকে ২০ বছরের মধ্যে। এই ১১ জন ফিজিক্স , ইংলিশ বা ম্যাথমেটিক্স পড়তে কোচিংয়ে যাচ্ছে বলে বাসা থেকে বের হতো। আসলে কিন্তু তারা জঙ্গি সংগঠনের কাজে যেতো।

আমেনা বেগম বলেন, আমরা অভিভাবকদের বলতে চাই স্কুলের শিক্ষকদের সম্পর্কে খোঁজ-খবর রাখুন। তাদের সন্তানরা যে শিক্ষকদের কাছে যাচ্ছে তারা কি শিক্ষাচ্ছে তা জানুন। আমরা দুইজন চট্টগ্রামের স্বনামধন্য স্কুলের শিক্ষককে সনাক্ত করেছি। তারা এই ছাত্রদের শিখিয়ে দিতো বাসায় কোচিংয়ের নাম দিয়ে বাসা থেকে বের হতে।

তিনি আরও বলেন, এই জঙ্গি সংগঠনের যারা সিনিয়র আছে তারা তাদের জুনিয়রদের শিখিয়ে দিতো মোবাইল কিনবে। যদি মোবাইলের টাকা না দেয় তাহলে টাকা চুরি করবে। যদিও এনারা ইসলাম কায়েমের কথা বলে । কিন্তু তারা তাদের ফলোয়ারদের অনৈতিক শিক্ষা প্রদান করছে।

তিনি  বলেন, আমরা যে স্কুল শিক্ষকদের সনাক্ত করেছি তাদের স্কুল কর্তৃপক্ষকে জানাবো। তাদের সম্পর্কে স্কুলে ব্রিফ করতে। কারণ তারা গোপনে সে স্কুলের কোনো ছাত্র বা ছাত্রীকে তাদের সঙ্গে যুক্ত করতে পারে। যা এখন প্রকাশ পাবেনা স্কুল ছাড়ার পর তা প্রকাশ পাবে।
উল্লেখ্য, নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন হিযবুত তাহরীরের চট্টগ্রামের আঞ্চলিক কমান্ডারসহ ১৫জন জঙ্গিকে আটক করেছে সিএমপির সাউথ ডিভিশন টিম। সিএমপির সাউথ ডিভিশনের মোট পাঁচটি টিম পৃথক অভিযানে তাদের আটক করে।
প্রথমে ওয়ালিদ ইবনে নাজিম (১৮) ও ইমতিয়াজ ইসমাইল (২৫) নামে দুইজনকে আটক করে। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে অভিযান পরিচালনা করে মাহফুজের বাসা থেকে আরও ১১ জনকে আটক করা হয়।

একইসঙ্গে আরেকটি বাসা থেকে আরও দুইজনকে আটক করে পুলিশ। যাদের মধ্যে চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল ও কলেজের সহকারী শিক্ষক হিযবুতের আঞ্চলিক কমান্ডার এরশাদুল আলমও রয়েছেন।

আটককৃত অন্যরা হলেন, হিযবুত তাহরীরের আঞ্চলিক প্রধান আবুল মোহাম্মদ এরশাদুল আলম (৩৯), আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ (৩০), মো. ইমতিয়াজ ইসমাইল (২৫), মো. নাছির উদ্দিন চৌধুরী (২২), মোহাম্মদ নাজমুল হুদা (২৭), মো. লোকমান গনি (২৯), মো. করিম (২৭), আব্দুল্লাহ আল মুনিম (২২), কামরুল হাসান প্রকাশ রানা (২০), মো. আরিফুল ইসলাম (২০), মো. আজিম উদ্দিন (৩১), ফারহান বিন ফরিদ প্রকাশ রাফি (২৩), মো. আজিমুল হুদা (২৪), ওয়ালিদ ইবনে নাজিম (১৫) ও মো. সম্রাট (২২)।
এসময় তাদের কাছ থেকে জঙ্গি সংগঠনের পতাকা, লিফলেট, ল্যাপটপ , পেনড্রাইভ, মোবাইল এবং ২ লাখ ৮২ হাজার নগদ টাকাও উদ্ধার করে পুলিশ।

জয়নিউজ/রিফাত/বিআর
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...