অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায় তাদের পেশা

0

বড় ভাই জুলহাসকে ট্রেনে তুলে দিতে গিয়ে রেলস্টেশন এলাকা থেকে অপহৃত হন জুবায়ের। অপহরণকারীরা তাকে মুক্তি দিতে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। হুমকি দেওয়া হয়, দাবি না মানলে নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া হবে জুবায়েরের লাশ। কিন্তু তার আগেই জুবায়েরকে অক্ষত অবস্থায় রেখে সোমবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকালে চার পেশাদার অপহরণকারীকে গ্রেফতার করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ।

কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন জানান, ১৪ সেপ্টেম্বর রাত ৯টার দিকে চট্টগ্রাম রেলস্টেশনে জুবায়ের তার ভাই জুলহাসকে ট্রেনে তুলে দিয়ে ঘরে ফিরছিল। পথে তাকে অপহরণ করে দূর্বৃত্তরা। পরে জুবায়েরের পরিবারের কাছে মুক্তিপণ হিসেবে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি কোতোয়ালী থানাকে জানানো হয়।

কোতোয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি দল তাকে উদ্ধারে অভিযান চালায়। একপর্যায়ে পুলিশ প্রযুক্তির মাধ্যমে অপহরণকারীদের অবস্থান সনাক্ত করতে সক্ষম হয়। অভিযানের বিষয়টি বুঝতে পেরে অপহরণকারীরা জুবায়েরকে পুরাতন রেলস্টেশনের সামনে চোখ বাঁধা অবস্থায় ফেলে যায়।

তিনি আরও জানান, পুলিশ তাকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়। অপহরণকারীদের গ্রেফতারে সাড়াশি অভিযানে নামে পুলিশ। এরপর রোববার (১৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ছয়টার দিকে প্রথমে এনায়েত বাজার এলাকা থেকে এ অপহরণকারী চক্রের সদস্য জাকারিয়া মাসুদকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে নিউ মার্কেট এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় আরমার হোসেন সাকিলকে। টেরিবাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় চক্রের অপর সদস্য আব্দুল আলীমকে। সর্বশেষ বায়েজিদ থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় অলিউল্লাহ মামুনকে।

কোতোয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কামরুজ্জামান জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জুবায়েরকে অপহরণের দায় স্বীকার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

 

জয়নিউজ/এফও/এসআই

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...