ভর্তির নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায় হচ্ছে: সুজন

0

নগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, সরকারি নির্দেশনা অম্যান্য করে বেসরকারি স্কুল-কলেজে ভর্তি ও পুনঃভর্তির নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে। ভর্তিবাণিজ্য বন্ধ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার করতে হবে।

বুধবার (১৫ জানুয়ারি) বেলা ১২টায় জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেনের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এ আহ্বান জানান।

সুজন বলেন, শিক্ষা মানুষের মৌলিক অধিকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাই শিক্ষাকে অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে শিক্ষাক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সংখ্যক বাজেট বরাদ্দ দিয়েছে। নতুন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, প্রতি উপজেলায় একটি টেকনিক্যাল স্কুল স্থাপন ও মাদ্রাসা শিক্ষার যুগোপযোগী করা হয়েছে বাজেটে।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে নগরের সরকারি স্কুল কলেজের সংকটকে পুঁজি করে অনেক স্কুল কলেজে মাত্রাতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হয়। অথচ তাদের শিক্ষারমান মোটেও উন্নত নয়। বিভিন্ন উপলক্ষের নামে টাকা নেওয়ার ফলে এসব প্রতিষ্ঠানে টাকার পাহাড় গড়ে উঠেছে। এসব প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত অডিটও করা হয় না। সরকারি ব্যবস্থায় এসব প্রতিষ্ঠানে অডিট এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে নিয়মিত অভিযান চালানোর জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে আহ্বান জানিয়েছেন।

জেলা প্রশাসক বলেন, প্রধানমন্ত্রী জনগণের কল্যাণে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডও পরিচালিত হয় জনগণকে কেন্দ্র করে।

তিনি বিভিন্ন বেসরকারি স্কুল কলেজ নানাপ্রকার অনিয়মের সঙ্গে জড়িত। এদের বিরুদ্ধে আমরা সবসময়ই সোচ্চার। যদি কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকার নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত ফি আদায় করে তাহলে সে প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন জেলা প্রশাসক।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হাজী মো. ইলিয়াছ, আব্দুর রহমান মিয়া, সাইদুর রহমান, নিজাম উদ্দিন, নাগরিক উদ্যোগের সদস্য সচিব হাজী মো. হোসেন, নগর যুবলীগ সদস্য আব্দুল আজিম, শেখ মামুনুর রশীদ, জাহেদ আহমদ চৌধুরী, অধ্যক্ষ কামরুল হোসেন, সোলেমান সুমন, জাহাঙ্গীর আলম, অনির্বাণ দাশ বাবু, নাছির উদ্দিন, সফি আলম বাদশা, হাসান মো. মুরাদ, রকিবুল আলম সাজ্জী, উৎপল দত্ত, সালাউদ্দিন জিকু, কামরুল হাসান রানা ও আব্দুল মালেক।

জয়নিউজ/বিআর
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...