চট্টগ্রাম ওয়াসা যেন সতিনের সন্তান

0

১৯৬৩ সালের ১৯ অক্টোবর পথচলা শুরু করে চট্টগ্রাম ওয়াসা। দীর্ঘ ৫৭ বছরে ওয়াসার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ভাগ্যে জুটেনি পেনশন। অথচ চট্টগ্রাম ওয়াসার অনেক পরে যাত্রা শুরু করা রাজশাহী ও খুলনা ওয়াসার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পেনশন পাচ্ছেন!

২০০৮ সালের ২ মার্চ খুলনা ওয়াসা এবং ২০১০ সালের ১ আগস্ট পথচলা শুরু করেছিল রাজশাহী ওয়াসার। ঢাকা ওয়াসাসহ বাংলাদেশের অন্য তিনটি ওয়াসায় পেনশন চালু থাকলেও বঞ্চিত শুধু চট্টগ্রাম ওয়াসা।

চট্টগ্রাম ওয়াসার কর্মচারীদের দাবির মুখে প্রশাসনের পক্ষ থেকে একের পর এক আশ্বাস দেওয়া হলেও এর বাস্তবায়ন হয়নি। কর্মচারীদের অভিযোগ, সিবিএ নেতারা নিজেদের স্বার্থ রক্ষার্থে প্রশাসনের সঙ্গে লেজুড়বৃত্তি করতে দীর্ঘ যুগেও পেনশনের আওতায় আনেনি চট্টগ্রাম ওয়াসাকে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওয়াসার এক কর্মচারী জয়নিউজকে বলেন, এখন যা আয় করছি তা সন্তানদের মানুষ করতে আর সংসরের খরচ চালাতেই শেষ হয়ে যাচ্ছে। কিছুদিন পর যখন অবসরে যাব তখন কীভাবে বাঁচব, তা আল্লাহই জানেন। এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আর প্রশাসনের দিকে আমরা চেয়ে আছি, উনারা যদি সদয় হয়ে আমাদের পেনশনের ব্যবস্থা করে দেন।

প্রশাসনের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জয়নিউজকে বলেন, আমি গত ৩০ বছর ধরেই শুনে আসছি পেনশনের আওতায় আসছি। কিন্তু চট্টগ্রাম ওয়াসা এখনো সেই সতিনের সন্তানই রয়ে গেছে। এটা নিয়ে বলতে গেলে যদি কারো রোষাণলে পড়ি সেই ভয়ে কখেনো কাউকে কিছু বলিনি।

এদিকে কর্মচারীদের অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম ওয়াসার শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. তাজুল ইসলাম জয়নিউজকে বলেন, আমাদের আগে যারা ওয়াসার শ্রমিক নেতা ছিলেন তারা কেন পেনশন নিয়ে কাজ করেননি? এ ব্যাপারে তারা দায়িত্ব এড়াতে পারেন না।

তিনি বলেন, আমরা দায়িত্ব নিয়ে ওয়াসা ব্যবস্থাপনায় যারা আছেন তাদের সঙ্গে কাজ করছি। শুনেছি পেনশন ফাইলটি আইন মন্ত্রণালয়ে আছে। আমরা আশাবাদী বঙ্গবন্ধুতনয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে এবার নিরাশ করবেন না।

মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে পেনশন ফাইলের সমন্বয় করছেন ওয়াসার ভারপ্রাপ্ত রাজস্ব কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম। জানতে চাইলে তিনি জয়নিউজকে বলেন, মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বিভিন্ন বিষয়ে আমাদের কাছে কিছু তথ্য চেয়েছিলেন। ইতোমধ্যে আমরা এ সংক্রান্ত সব কাগজপত্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। আশা করি এবার পেনশনের কাজ এগিয়ে যাবে।

একই প্রসঙ্গে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী একেএম ফজলুল্লাহ জয়নিউজকে বলেন, পেনশনের কাজ অনেকদূর এগিয়েছে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ক্লিয়ারেন্স পাওয়া গেছে। সর্বশেষ ভেটিংয়ের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে আছে। আশা করি কম সময়ের মধ্যে পেনশনের অনুমোদন পাওয়া যাবে।

জয়নিউজ/এসআই

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...