চট্টগ্রামে যৌতুকের আগ্রাসন বেশি, নিয়ন্ত্রণের আহ্বান আমেনার

0

যৌতুকমুক্ত সমাজ গড়ার আহ্বান জানিয়ে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার আমেনা বেগম বলেছেন, চট্টগ্রামে যৌতুকের আগ্রাসন অনেক বেশি। এটা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারী) বিকেলে চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক লালদিঘী ময়দানে আয়োজিত মাদক, সন্ত্রাস, যৌতুক, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতিবিরোধী মহাসমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

আমেনা বেগম বলেন,  চট্টগ্রামে যৌতুক একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়ার মতো হয়ে উঠেছে। মেয়ের বিয়েতে লাখ টাকা খরচ না করলে সে বিয়ে যেন পূর্ণতা পায় না। ঈদের উৎসবে গরু-ছাগল না পাঠালে ছেলের পরিবারের ইজ্জত বাঁচে না। এসব উপহারই যৌতুক। আমার কাছে শতাধিক ডিভোর্সের কেইস আসে। যার সবগুলোই যৌতুক সংক্রান্ত বিষয়। আমি এসব অভিযোগ শুনি। ভুক্তভোগীকে প্রয়োজনীয় আইনি সহায়তা দেওয়ার চেষ্টা করি।

তিনি আরো বলেন, আপনারা যারা মেয়ের বিয়েতে যৌতুক দেন তারা সমাজের মধ্যম আয়ের মানুষগুলোকে বিপথে ফেলে দেন। আপনাদের দেখে অন্যরাও প্রভাবিত হয়। এটা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। নিজের মেয়েকে স্বাবলম্বী করে তুলুন। মেয়ে আপনার জন্য সম্পদ হবে। দেশের জন্যে সম্পদ হয়ে গড়ে উঠবে। আমি অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার হয়েছি। আমার মা আমার বাসায় থেকে মারা গেছে। আমি মায়ের দেখাশুনা করেছি।

মাদক নির্মূল প্রসঙ্গে আমেনা বেগম বলেন, মাদক সমস্যা দীর্ঘদিনের। পুলিশ সবসময় মাদকের বিরুদ্ধে সচেতন থাকে। মাদকের আগ্রাসন এতটাই বেশি যে মাদক চট্টগ্রাম হয়ে ঢাকা পর্যন্ত পৌঁছে যায়। এর বিরুদ্ধে মায়েদের সচেতন করতে হবে। মায়েরা সন্তানদের খোঁজ রাখবেন৷ তাদের গতিবিধি অনুসরণ করবেন।

জয়নিউজ/কামরুল

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...