ঘরেই ১ মিনিটে করোনা পরীক্ষা!

0

বিশ্বজুড়ে এখন করোনাভাইরাস আতঙ্ক। ঘর থেকে বাইরে বের হতেই ভয় পাচ্ছেন অনেকেই। আবার সামান্য সর্দি-কাশিতেই অনেকেই আতঙ্কিত হয়ে পড়ছেন।

এ অবস্থায় আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। কয়েকজন বিশেষজ্ঞ বলছেন, ঘরে বসে নিজে নিজেই করা যাবে করোনার পরীক্ষা!

করোনায় আক্রান্ত হলেও এর লক্ষণ প্রকাশ পেতে বেশ কয়েকদিন সময় লেগে যায়। তাই জ্বর-সর্দি-কাশি নিয়ে যখন রোগী হাসপাতালে যান ততক্ষণে ফুসফুসের ৫০ ভাগ ফাইব্রোসিস তৈরি হয় যায়। যার মানে অনেক দেরি হয়ে গেছে। তাই ঘরেই বসেই নিশ্চিত হওয়া উত্তম, আপনার শরীরে করোনার লক্ষণ আছে কিনা।

তাইওয়ানের বিশেষজ্ঞরা নিজে নিজেই করোনাভাইরাস পরীক্ষার একটি পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন। তাঁদের দাবি, মাত্র কয়েক সেকেন্ডের এই পরীক্ষায় নিশ্চিত হওয়া যায় শরীরে করোনাভাইরাস আছে কিনা।

কী সেই পরীক্ষা

পরিচ্ছন্ন পরিবেশে একটি লম্বা শ্বাস নিয়ে ১০ সেকেন্ডের জন্য এটি আটকে রাখুন। যদি এই শ্বাস ধরে রাখার সময় আপনার কাশি না আসে, বুকে ব্যথা বা চাপ অনুভূত না হয়; অর্থাৎ কোনো অস্বস্তি না লাগে তাহলে নিশ্চিত থাকুন আপনার ফুসফুসে কোনো ইনফেকশন হয়নি।

প্রতিদিন সকালে এই পরীক্ষাটি করে নিশ্চিত হওয়ায় যায় করোনায় আক্রান্ত কিনা।

পরামর্শ দিলেন দেবী শেঠীও

করোনার লক্ষণের ব্যাপারে পরামর্শ দিয়েছেন ভারতের আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. দেবী শেঠীও।

তিনি বলেন, যদি কারো সর্দি থাকে তবে সবার কাছ থেকে আলাদা হয়ে নিজেই নিজেকে পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

প্রথম দিন শুধু ক্লান্তি আসবে। আর তৃতীয় দিন অনুভব হবে হালকা জ্বর। সঙ্গে কাশি ও গলায় সমস্যা।

পঞ্চম দিন পর্যন্ত মাথার যন্ত্রণা ও পেটের সমস্যা হতে পারে। ষষ্ঠ কিংবা সপ্তম দিনে মাথার যন্ত্রণা কমবে কিন্তু শরীরের ব্যথা বাড়বে।

ডায়রিয়ার লক্ষণও দেখা দিতে পারে। পেটের সমস্যা থেকে যাবে।

অষ্টম ও নবম দিন সব লক্ষণই চলে যাবে। তবে সর্দির প্রভাব বাড়বে। এর অর্থ আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়েছে এবং আপনি করোনামুক্ত।

ডা. শেঠী সতর্ক করেন, যদি অষ্টম কিংবা নবম দিনেও শরীর খারাপ হয় তবে অবশ্যই করোনার জন্য সরকারের খোলা হেল্পলাইনে ফোন করে পরীক্ষা করতে হবে।

জয়নিউজ

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...