পটিয়ায় মৃত ব্যক্তিকে দাফনের দায়িত্ব নিলেন আ’লীগ নেতা নাছির

0

দেশে বর্তমানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত হয়ে কোনো রোগীর মৃত্যু হলে মরদেহের দাফন ও সৎকারের দায়িত্ব নিতে ভয় পাচ্ছে পরিবার-পরিজন ও আত্মীয়-স্বজনরা। সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কায় কোথাও কোথাও বাবার মরদেহের জানাজা বা দাফনের দায়িত্ব নিতে চাচ্ছেন না ছেলে। হাসপাতালে মরদেহ ফেলে পালিয়ে যাওয়ার মতো ঘটনাও ঘটছে।

এমনই এক প্রেক্ষাপটে পটিয়ায় করোনা আক্রান্ত কোনো রোগীর মৃত্যু ঘটলে তাদের দাফন কাপন, জানাজা পড়ানোসহ সৎকারের মতো ব্যতিক্রমধর্মী কাজে এগিয়ে এসেছেন বিজিএমইএর সাবেক সহসভাপতি ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মো. নাছির।

এছাড়া যতদিন পর্যন্ত করোনার প্রাদুর্ভাব থাকবে এবং লাশের কবর খনন, গোসল করানো, জানাজা পড়ানো দাফন কাপনের কাজে গাউছিয়া কমিটির কর্মীরা কাজ করে যাবেন, ততদিন পর্যন্ত তাদের সবপ্রকার সুরক্ষা সামগ্রী সরবরাহের ব্যয়ভার বহন করবেন তিনি। এ দুঃসময়ে তিনি গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ পটিয়া উপজেলা শাখাকে সব ধরনের সহযোগিতা করার ঘোষণা দিয়েছেন। এতে কাজ করেছেন ৫০ সদস্যের একদল প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অভিজ্ঞ আলেম ও স্বেচ্ছাসেবক দল।

জানা যায়, বিগত দিনগুলোতে পটিয়ায় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত আলেম ও স্বেচ্ছাসেবক গাউসিয়া কমিটি দলটি এপর্যন্ত ১৫টি মরদেহ দাফন করেছেন। সম্পূর্ণ অলাভজনক প্রতিষ্ঠানটির মাধ্যমে কার্যক্রম শুধু পটিয়ার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে। পটিয়ার যেখানে প্রয়োজন হবে সেখানেই করোনারোগী পরিবহন এবং মৃতদেহ দাফন ও সৎকারের জন্য ছুটে যাবে। মুসলিম ছাড়া অন্যান্য ধর্মের মরদেহ হাসপাতাল থেকে শ্মশান বা সৎকারের স্থানে পৌঁছে দেওয়া হবে।

এ উপলক্ষে শুক্রবার (১৯ জুন) সকালে উপজেলার পৌরসদরের গাউসিয়া কমিটির খানকা কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ নেতা মো. নাছিরের পক্ষে সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণপূর্বক স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় নাছির বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনা আক্রান্ত মরদেহ দাফন ও সৎকারের ক্ষেত্রে সমস্যাটি আমার নজরে আসে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ দেখতে পাই করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় পরিবারের লোকজনও অনেক ক্ষেত্রে মরদেহ ফেলে ভয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। এ ঘটনা আমার মনকে নাড়া দেয়। একসময় আমার এলাকাবাসীর সঙ্গে আলাপকালে তিনি করোনারোগীদের পরিবহন ও মরদেহ দাফন ও সৎকারে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিতে উৎসাহিত ও পরামর্শ দেন।

তিনি আরো বলেন, গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ পটিয়া উপজেলা শাখার স্বেচ্ছাসেবকদের মাধ্যমে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পটিয়ার যেকোনো লোক মারা গেলে মৃতদের দাফন কাপন ও সৎকার করতে যা যা প্রয়োজন হবে তা আমার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে দিয়ে পটিয়াবাসীর পাশে দাঁড়াতে চাই।

এতে সভাপতিত্ব করেন গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ পটিয়া উপজেলা কমিটির স্বেচ্ছাসেবক টিমের প্রধান মাহবুবুল আলম।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন, সদস্যসচিব মাওলানা ইসহাক আল কাদেরী, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মাঈন উদ্দীন, মো. নাজিম উদ্দীন, মহিউদ্দিন মহি, তালুকদার নাজিম উদ্দীন, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা মো. রফিক, কায়সার হিরু, টিপু, তাহের, আব্বাস, নুরুল আবসার, আইয়ুব আলী মিজান, মাওলানা আলী আহমদ কাসেমী।

জয়নিউজ/কাউছার/বিআর
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...