চমেক চিকিৎসককে মারধরের ঘটনায় মামলা

0

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ইন্টার্ন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের আহ্বায়ক ডা. ওসমান ফরহাদ ও চমেক ছাত্র সংসদের (চমেকসু) সাহিত্য সম্পাদক সানি হাসনাইন প্রান্তিককে মারধরের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শুক্রবার (১৪ আগস্ট) বিকেলে চমেক ছাত্র সংসদের ভিপি ডা. এম এ আউয়াল রাফি বাদি হয়ে চকবাজার থানায় মামলাটি করেন। মামলায় ২১ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ১০-১৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রুহুল আমীন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, চমেক হাসপাতালে ইন্টার্ন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের আহ্বায়ক ডা.ওসমান ফরহাদ ও চমেকসু সাহিত্য সম্পাদক সানি হাসনাইন প্রান্তিককে মারধরের ঘটনায় বিকেলে একটি মামলা (মামলা নম্বর পাঁচ) করা হয়েছে। মামলায় ২১ জনের নাম আসামির তালিকায় উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাত আরও ১০ থেকে ১৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: চমেক হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসক নেতার ওপর ফের হামলা, আহত ২

মামলায় আসামিরা হলেন- খোরশেদ বিন মেহেদী (৫৮তম এমবিবিএস), ইমন শিকদার (৫৮তম এমবিবিএস), তৌফিকুর রহমান (৫৮তম এমবিবিএস), ইশতি (৫৮তম এমবিবিএস), কে এম তানভীর (৫৮তম এমবিবিএস), বুলবুল (৫৮তম এমবিবিএস), ওবায়েদ (৫৮তম এমবিবিএস), শাহরিয়ার ইসলাম ইমন (৫৮তম এমবিবিএস), মুশফিকুন ইসলাম আরাফ (৫৯তম এমবিবিএস), রিয়াজুল ইসলাম জয় (৫৯তম এমবিবিএস), অভিজিৎ দাশ (৬০তম এমবিবিএস), ফাহাদুল ইসলাম (৬০তম এমবিবিএস), আতাউল্লাহ বুখারী (৬০তম এমবিবিএস), জামশেদুল ইসলাম (৬০তম এমবিবিএস), হুজায়ফা কবির পিয়াল (৬০তম এমবিবিএস), কনক দেবনাথ (২৯তম বিডিএস), সাজেদুল ইসলাম হৃদয় (৩০তম বিডিএস), ইমতিয়াজ আলম (৩০তম বিডিএস), সাইফ উল্লাহ (৬১তম এমবিবিএস) ও নিবরাজ হোসাইন (৩০তম বিডিএস)।

জয়নিউজ/এসআই
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...