২৯ বছরেও পদোন্নতি জুটেনি পিটিআই ইনস্ট্রাক্টরদের

0

প্রাইমাররি টিচার্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (পিটিআই) ইনস্ট্রাক্টরদের অনেকেই ২৯ বছর ধরে একই পদে কর্মরত। কিন্তু এত বছরেও মিলেনি কোনো পদোন্নতি। যদিও এত বছরে নতুন পদ সৃজনে দ্বিতীয় সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট পদে পদায়নে একটি অনুমোদন পাওয়া গেছে। কিন্তু দুই মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো তা বাস্তবায়িত হয়নি। এতে পদোন্নতির আশায় দিন গুনে যাওয়া ইনস্ট্রাক্টররা চরম হতাশায় ভুগছেন। অবসরের আগে পদোন্নতি পাওয়া যাবে কিনা তা নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন।

জানা যায়, গত ২ জুলাই প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটির সভায় পিটিআইতে নতুন ৬৬টি দ্বিতীয় সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট পদ সৃজনের অনুমোদন দেন সচিব কমিটি। এরপর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তর থেকে পদোন্নতি প্রাপ্ত তালিকা মন্ত্রালয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত শূন্য পদে পদায়ন হয়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পিটিআই ইনস্ট্রাক্টর জানান, ২৯ বছর আগে যে পদে যোগদান করেছিলাম, এখনো সে পদে আছি। অবসরের আর মাত্র দুই বছর বাকি। তারপর হয়ত পদোন্নতিবিহীন পিআরএল। অনেকে ক্ষেত্রেই তো পদ নেই, তবুও ভাসমান পদে পদোন্নতি করা হয়। কিন্তু আমাদের বঞ্চিত করা হচ্ছে।

যোগাযোগ করা হলে বাংলাদেশ পিটিআই কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি খন্দকার দীন মোহাম্মদ জয়নিউজকে বলেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষার সিনিয়র সচিব স্যারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এক যুগ পর ৬৬টি দ্বিতীয় সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট পদ সৃষ্টি হয়। জিও জারীসহ সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার পর দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও পদগুলোতে এখনও পদায়ন করা হয়নি। এতে পিটিআই ইনস্ট্রাক্টকদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করেছে। কারণ অনেক ইনস্ট্রাক্টরা ১৯৯২ সালে চাকরিতে যোগদান করেছেন। তারা ২৮ বছর একই পদে চাকরি করেছেন। চাকরি জীবন শেষ হওয়ার আগে যদি পদোন্নতি হয়, তাহলে তারা কিছুটা স্বস্তির পাবে।

সমিতির মহাসচিব মো. সেলিম বলেন, ভার্চুয়াল সভায় সিনিয়র সচিব স্যারের বক্তব্য ও নির্দেশনা ২৯ বছরের পদোন্নতিবঞ্চিত পিটিআই ইনস্ট্রাক্টরগণের মাঝে আশার সঞ্চার করেছে। যা পিটিআইতে ডিপিএড ডাবল শিফট পরিচালনা শিক্ষক প্রশিক্ষণে গুণগত মান উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। তবে এ পদোন্নতি প্রদান বিলম্বিত হচ্ছে। আশা করবো খুব তাড়াতাড়ি পদায়ন প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হবে।

এব্যাপারে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন জয়নিউজকে বলেন, পিটিআই ইনস্ট্রাক্টরদের নতুন ৬৬টি দ্বিতীয় সহকারী সুপারিনটেনডেন্ট পদায়নের ব্যাপারে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ চলছে। কাজ শেষ হলেই পদায়ন ঘোষণা আসবে। এটা চলতি অর্থবছরেই হতে পারে বলে আভাস দেন তিনি।

জয়নিউজ/পিডি

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...