দু’বার পিছিয়েও জিতেছে ব্রাজিল, নায়ক নেইমার

0

নিজ মাঠে ব্রাজিলকে ভালোই চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিল পেরু। আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে এগিয়েও গিয়েছিল দুই দফা। কিন্তু নেইমার ম্যাজিকে মাটি হয়ে গেছে পেরুর স্বপ্ন।

উত্তেজনাকর ম্যাচে জয় পেতে চেষ্টার ত্রুটি রাখেনি পেরু। ম্যাচে দু’দুটি লাল কার্ড দেখে দলটি। এরপরও থামানো যায়নি ব্রাজিলের জয়রথ। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে টানা দ্বিতীয় ম্যাচে জিতেছে হলুদ জার্সিধারীরা। এই দুই ম্যাচে প্রতিপক্ষকে ৯ গোল দিল পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

লিমায় ম্যাচের শুরুতেই ধাক্কা খায় ব্রাজিল। ডি বক্সে বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে মার্কিনিয়োস বল তুলে দেন আন্দ্রে কারিয়োর পায়ে। জোরালো ভলিতে জাল কাঁপান এই মিডফিল্ডার। এর পাঁচ মিনিট পর মার্কিনিয়োস ব্যথা পেয়ে মাঠ ছাড়েন। বদলি হিসেবে নামেন রদ্রিগো কাইয়ো।

১৪ মিনিটের মাথায় গোলরক্ষককে একা পেয়েও পরাস্ত করতে পারেননি রবার্তো ফিরমিনো। তবে এগিয়ে থাকা বলিভিয়া যেন কিছুতেই ব্রাজিলকে সুযোগ দিতে রাজি ছিল না। ২৮ মিনিটে তারা করে বসে বড় এক ভুল। ডি বক্সের মধ্যে নেইমারের জার্সি টেনে ধরে তাকে শট নেয়া থেকে আটকে রাখেন পেরুর মিডফিল্ডার ইয়োতুন। পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সুযোগ পেয়ে সফল স্পট কিকে নেইমার সমতায় ফেরান দলকে।

৫৮ মিনিটে আরও একবার এগিয়ে যায় পেরু। বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে কাইয়ো সেটি দিয়ে দেন রেনাতো তাপিয়ার কাছে। তিনি বক্সের বাইরে থেকে শট নিলে সেটি সামনে একজনের পায়ে লেগে ঢুকে যায় জালে।

পিছিয়ে পড়া ব্রাজিল গোল শোধ করে পাঁচ মিনিটের মাথায়ই। ৬৪ মিনিটে নেইমারের কর্নার থেকে হেডে বল জালে জড়ান ফিরমিনো। ৮৩ মিনিটে নেইমার ডি বক্সে ফাউলের শিকার হন, পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সফল স্পট কিকে গোল করেন ব্রাজিলকে এগিয়ে নেন পিএসজি ফরোয়ার্ড।

৮৯তম মিনিটে রিশার্লিসনের মুখে আঘাত করে শুরুতে হলুদ কার্ড এবং পরে ভিআরে অপরাধ দেখে ডিফেন্ডার কার্লোস জামব্রানোকে লাল কার্ড দেন রেফারি। তার তিন মিনিট আগে লাল কার্ড দেখেন পেরুর বেঞ্চের গোলরক্ষক কাসেদাও।

যোগ করা সময়ের চতুর্থ মিনিটে আরও এক গোল করে ব্রাজিলের সহজ জয় নিশ্চিত করেন নেইমার। ম্যাচ শেষে ৪-২ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল।

জয়নিউজ

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...