রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্থানীয়দের ছাঁটাই বন্ধে এনজিওগুলোকে আল্টিমেটাম

0

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্থানীয়দের ‘গণহারে ছাঁটাই’ বন্ধে ও চাকরি ফেরত দেওয়ার জন্য এনজিওগুলোকে সাত দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে চাকরি ফেরত না দিলে ওই এনজিওগুলোকে ‘প্রতিহত’ করার ঘোষণাও দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (১৪ জানুয়ারি) কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে ‘কক্সবাজারবাসীর’ব্যানারে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে এ আল্টিমেটাম দেওয়া হয়।

সাম্প্রতিক সময়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত এনজিওগুলোতে স্থানীয়দের ‘গণহারে ছাঁটাই’ করার প্রতিবাদে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে এ বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করেন ভুক্তভোগী ও স্থানীয়রা।

বিক্ষোভ সমাবেশে অভিযোগ করা হয়, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ঠেকাতে দেশি-বিদেশি এনজিওগুলো পরিকল্পিতভাবে স্থানীয়দের চাকরি থেকে ছাঁটাই করছে। এছাড়াও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নতুন নতুন চাকরির ক্ষেত্রে স্থানীয়দের বাদ দিয়ে এনজিওর কর্তারা বিশেষ সুবিধা নেওয়ার মাধ্যমে তাদের স্বজন ও নিজস্ব লোকদের চাকরি দিচ্ছে।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা আরও বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চাকরি স্থানীয়দের অধিকার। একটি মহল সুপরিকল্পিতভাবে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দেশবিরোধী কর্মকাণ্ড করার জন্য স্থানীয়দের চাকরি থেকে বাদ দিচ্ছে। এসব ষড়যন্ত্র বন্ধ করার জন্য তারা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক ফজলুল কাদের চৌধুরী, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহজাহান, আমরা কক্সবাজারবাসী সংগঠনের পক্ষে  কলিম উল্লাহ, নাজিম উদ্দিন, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক রাসেল চৌধুরী, উখিয়াবাসীর পক্ষে ইমরুল কায়েস চৌধুরী, শ্রমিক নেতা এইচ এম নজরুল ইসলাম, কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহসভাপতি ইসমাঈল সাজ্জাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মারুফ ইবনে হোসাইন, উপ-দপ্তর সম্পাদক মাইন উদ্দিন, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি জাকির হোসাইন, সাবেক সভাপতি ওয়াহিদুর রহমান রুবেল, জেলা ছাত্রদল নেতা কানন বড়ুয়া বিশাল, উখিয়া উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি রিদুয়ান ছিদ্দিক, শ্রমিক নেতা জসিম উদ্দিন, জাহেদুল করিম, মোস্তাক আহমেদ, রায়হান উদ্দিন, চাকরিচ্যূত হওয়া এনজিও কর্মী মোস্তাক আহমদ, মো. ম্যাক্স ও আকিব চৌধুরী।

জয়নিউজ/শামীম/বিশু/জুলফিকার
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...