সন্দ্বীপ উপকূলে চর, সম্ভাবনার স্বপ্নদুয়ার

0

সন্দ্বীপের পশ্চিম উপকূল ঘেঁষে দীর্ঘ ২০ কিলোমিটার এলাকায় জেগে উঠছে নতুন চর। চরের প্রায় ২ কিলোমিটার অংশজুড়ে সবুজ উড়ির (একপ্রকার ঘাস) সমারোহ। জোয়ারের সময় দেখা না গেলেও ভাটায় স্পষ্টভাবে এর অস্তিত্বের প্রমাণ মিলছে।

দ্রুত জেগে ওঠা চরের বিশাল অংশে ‘উড়ির’ সবুজ সমারোহ এলাকার মানুষের মাঝে নতুন আশার সঞ্চার করেছে। মেঘনার ভাঙনে অন্যত্র ভাড়ায় কিংবা নতুন ঘর তৈরির চিন্তা-ভাবনা করছিলেন যারা, তারা অনেকেই পুনরায় ফিরে আসছেন। যারা মেঘনার করাল গ্রাসে বাপ-দাদার ভিটেমাটি হারিয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছিলেন, তাদের চোখে এখন আলোর ঝিলিক। হারানো ভূমি ফিরে পাওয়ার দৃঢ় আশা।

সন্দ্বীপের দীর্ঘাপাড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন টিটু বলেন, দীর্ঘাপাড় ইউনিয়ন সাগরে বিলীন হয়ে যাওয়ার পর পুনরায় জেগে উঠেছে। এর আশেপাশে যেভাবে চর জেগে উঠছে তাতে সেদিন আর দূরে নয়, অচিরে আমরা উড়িরচরসহ কোম্পানিগঞ্জের সঙ্গে মিশে যাব।

সন্দ্বীপ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাস্টার শাহজাহান বিএ বলেন, ৬০ মৌজার সন্দ্বীপ ইতোমধ্যে কয়েকটি ভাঙন থেকে উদ্ধার হয়েছে। সরকার পরিকল্পনা গ্রহণ করলে খুব দ্রুত এ এলাকায় বিশাল ভূমি জেগে উঠবে। বিশেষ করে হরিশপুর ও দীর্ঘাপাড়ের ভাঙনকবলিত মানুষ জায়গা-সম্পত্তি পুনরায় নদীবক্ষে জেগে ওঠায় আশার আলো দেখছে।

সন্দ্বীপের উত্তর-পশ্চিমে ষাটের দশকে জেগে ওঠা বিচ্ছিন্ন ইউনিয়ন উড়িরচরের দক্ষিণে জেগে উঠেছে আরও প্রায় ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ চর। আবার দ্বীপের পশ্চিমে চর জাহাইজ্যা (স্বর্ণদ্বীপ), চর ক্যারিং, ঠ্যাংগার চর (বর্তমানে ভাসানচর) মিলে জেগে উঠা নতুন ভূমির পরিমাণ সন্দ্বীপের প্রায় দ্বিগুণের চেয়ে বেশি হতে পারে বলে আশা করছেন স্থানীয়রা।

ভূ-উপগ্রহের চিত্র বিশ্লেষণে সংশ্লিষ্ট পর্যবেক্ষকদের ধারণা, সন্দ্বীপের পশ্চিম উপকূলে নোয়াখালী, হাতিয়া, সন্দ্বীপজুড়ে দক্ষিণ-পশ্চিমদিকে জেগে ওঠা চরগুলো আশেপাশে পলি জমে বিস্তৃত হয়ে সাগর মোহনায় সাংগু গ্যাসফিল্ডের কাছাকাছি চলে গেছে। দিন দিন এ চরের পরিধি বাড়ছে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, বিগত ৫০ বছর ধরে মেঘনা মোহনায় ভূমি জাগরণের বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় এ অঞ্চলে প্রায় ৬ লাখ হেক্টর নতুন ভূমি জেগে উঠেছে। কখনও প্রকৃতির আপন খেয়ালে, আবার কখনও ক্রসবাঁধ নির্মাণের মাধ্যমে এ ভূমি উদ্ধার হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের মেঘনা সমীক্ষা-২০০১ এর মতে, প্রকৃতিগতভাবে প্রতিবছর প্রায় ২ হাজার হেক্টর ভূমি এ মোহনায় জেগে উঠছে। তবে বর্তমানে এর পরিমাণ আশাতীত বেড়ে গেছে।

সন্দ্বীপের তিনপাশে গড়ে ওঠা নতুন চর ছাড়াও এর পশ্চিমে হাতিয়া দ্বীপ সংলগ্ন নিঝুম দ্বীপ, চর কবিরা, চর কালাম, চর আলীম, চর সাগরিকা, উচখালী, নিউ ঢালচরসহ প্রায় ৫ হাজার বর্গ কিলোমিটার নতুন ভূমি জেগে উঠেছে। ভূমি পুনরুদ্ধার ও চর উন্নয়ন সংস্থাগুলোর মতে, এই এলাকায় প্রতিবছর গড়ে অন্তত ১৫-২০ বর্গ কিলোমিটার নতুন চরের সন্ধান মিলছে।

জানা যায়, সাগর মোহনায় জেগে ওঠার প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করাসহ এটিকে ব্যবহারোপযোগী করে তুলতে সরকারের ভূমি পুনরুদ্ধার প্রকল্পে মেঘনা মোহনা অনুসন্ধান, চর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড সেটেলমেন্ট প্রজেক্ট, সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল অ্যান্ড জিওগ্রাফিক্যাল ইনফরমেশন সার্ভিস, ইনস্টিটিউট অব ওয়াটার মডেলিংসহ আরও কয়েকটি সরকারি সংস্থা কাজ করছে। তাদের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে সরকারের আরও ছয়টি বিভাগ-এলজিইডি, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল, কৃষি, ভূমি, বন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড। সন্দ্বীপের বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ইউনিয়ন উড়িরচরের পশ্চিমে সৃষ্ট নতুন চরে হেঁটে চরলক্ষ্মী যাওয়া যায়। জাহাইজ্যা বা স্বর্ণদ্বীপ থেকে প্রায় ১১ কিলোমিটার দক্ষিণে ভাসানচরে (ঠ্যাংগার চর) এখন চলছে রোহিঙ্গা স্থানান্তরের বিশাল কর্মযজ্ঞ।

জেগে ওঠা ভূমির স্থায়িত্ব সম্পর্কে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মেরিন সাইন্স অ্যান্ড ফিশারিজ ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক মোসলেম উদ্দিন মুন্না জয়নিউজকে বলেন, সন্দ্বীপের দক্ষিণ-পশ্চিমের ঠ্যাংগার চর (ভাসান চর) বয়ে আসা ¯্রােতধারার লোড নিচ্ছে। এর ফলে দ্বীপের পশ্চিমে ফুলে ওঠা বিশাল ভূমি টিকেও যেতে পারে। তবে ভূমি উদ্ধারে সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থাগুলোকে পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি হার্ড ও সফট ইঞ্জিনিয়ারিং কৌশল প্রয়োগ করে সংরক্ষণের পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। বর্তমানে কুতুবদিয়াতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

তিনি ভূমি সংরক্ষণে সন্দ্বীপ চ্যানেলে স্বল্প পরিসরে ড্রেজিংয়ের প্রয়োজনীয়তার কথাও উল্লেখ করেন।

জেগে ওঠা নতুন ভূমি খুলে দিচ্ছে সম্ভাবনার স্বপ্নদুয়ার। তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, এ ভূমি সংরক্ষণ বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে উদ্যোগ নিতে হবে। নতুন ভূমি সংরক্ষণ সম্ভব হলে বদলে যাবে দেশের মানচিত্র। তাতে উদ্বাস্তু ও ভূমিহীনদের পুনর্বাসনসহ কৃষি ও পশুপালনক্ষেত্রে বিশাল সুযোগ সৃষ্টি হবে।

জয়নিউজ/আরসি
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...