হালদা রক্ষায় জনসচেতনতা সৃষ্টির আহ্বান

0

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘শুধু প্রশাসনের অভিযানের মধ্যে দিয়ে হালদা নদীর দূষণরোধ ও জীববৈচিত্র্য রক্ষা সম্ভব নয়। এজন্য আমাদের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন জনসাধারণের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করা।’

তিনি বলেন, ‘সচেতনতা সৃষ্টি না হলে শুধু অভিযান, ধর-পাকড় কিংবা জরিমানা করে হালদাকে রক্ষা করা সম্ভব হবে না। তাই হালদাকে বাঁচাতে হলে প্রশাসন ও স্থানীয়দের এগিয়ে আসতে হবে।’

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) হালদা নদীর দূষণরোধ ও জীববৈচিত্র‌্য রক্ষায় জনসচেতনতা কার্যক্রম উদ্বোধন ও পোনা অবমুক্তকরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এদিন দুপুরে গড়দুয়ারা ইউনিয়নের নয়াহাট এলাকায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে হাটহাজারী উপজেলা প্রশাসন।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম রাশেদুল আলম, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের হালদা রিভার রিসার্চ ল্যাবরেটরির সমন্বয়ক ও হালদা গবেষক অধ্যাপক ড. মনজুরুল কিবরিয়া, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সম্রাট খীসা, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নুরুল আলম বাসেক, গড়দুয়ারা ইউপি চেয়ারম্যান সরওয়ার মোর্শেদ তালুকদার, উত্তর মাদার্শা চেয়ারম্যান মনজুর হোসেন চৌধুরী মাসুদ, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নিয়াজ মোর্শেদ ও এনজিও সংস্থা আইডিএফের ডেপুটি কো-অডিনেটর সুদর্শন বড়ুয়া।

অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিরা হালাদা নদীতে কার্প জাতীয় মাছের পোনা অবমুক্ত করেন।

এদিকে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা চেয়ারম্যানসহ অতিথিরা একটি মডেল পুকুর পরিদর্শন করেন।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এবার প্রথমবারের মত হালদার রেণু বৃদ্ধি যাচাই করা হচ্ছে। হালদা পাড়ের ওই পুকুরটির নাম দেওয়া হয়েছে মডেল পুকুর।

এ সময় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াছকে ওই পুকুরে মাছ দেখানো হয়। বর্তমানে রুই জাতীয় মাছের ওজন প্রায় আড়াই মাসে ছয় ইঞ্চি হয়েছে। খুব শীঘ্রই এসব মাছ হালদা নদীতে অবমুক্ত করা হবে তিনি জেলা প্রশাসকে জানান।

জয়নিউজ/তালেব/বিআর
আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...