খাগড়াছড়ি চাইন্দা বৌদ্ধ বিহারে কঠিন চীবর দানোৎসব উদযাপন

0

খাগড়াছড়ির গঞ্জপাড়ায় চাইন্দা বৌদ্ধ বিহারে নানা ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতায় কঠিন চীবর দানোৎসব উদযাপিত হচ্ছে। তিন মাসের বর্ষাবাস (উপোস) শেষে নানা ধর্মীয় এ কঠিন চীবর দানোৎসব পালন করা হয়।

মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) সকাল ১০ টা থেকে চাইন্দা বৌদ্ধ বিহারে বুদ্ধ পুজা,পঞ্চশীল গ্রহণ, সংঘদান, অষ্ট পরিস্কার দান,হাজার বাতি দান ও ধর্ম দেশনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় কঠিন চীবর দানোৎসব। বিকেলে অনুষ্ঠানে ধর্মদেশনা দেবেন পানছড়ি অরণ্য কুটির বৌদ্ধ বিহারের প্রধান ভিক্ষু ভ্রম দত্ত মহাথের।

সকালে কঠিন চিবরদানোৎসব প্রথম পর্বে উপস্থিত ছিলেন, ভিক্ষু চাইরা মিজু, চাইন্দা বৌদ্ধা বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি চাইথোয়াই মারমা,সাধারণ সম্পাদক মংথুই মারমা প্রমুখ।

জগতের সকল প্রাণীর সুখ সমৃদ্ধি কামনা করে সকালে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা প্রদীপ প্রজ্জ্বলন,ফুল-ফল পুজা ও প্রার্থনা করে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বিরা ভান্তেকে ছোয়াইং প্রদান করে উৎসব পালনের মধ্য দিয়ে সন্ধ্যায় ভগবান বৌদ্ধের উদ্দেশ্যে আকাশে আকাশে প্রদীপ (ফানুস) উড়ানোর ও হাজার প্রদীপ জ্বালিয়ে জগতের সকল প্রাণীর মঙ্গল কামনা করা হবে।

কঠিন চীবর দানোৎসব মুলত বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম প্রধানতম ধর্মীয় মাসোব্যাপী কর্মীয় অনুষ্ঠান। আষাঢ়ি পূর্ণিমার পর দিন থেকে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের তিন মাসব্যাপী ওয়া বা বর্ষাব্রত (উপোষ) পালনের ৩ মাস পর হয় প্রবরাণা পূর্ণিমা। তার পর থেকে বিহারে বিহারে শুরু কঠির চীবর দানোৎসব।

২৪ ঘন্টার মধ্যে তুলা থেকে সুতা তৈরী ও সেই সুতায় চীবর তৈরী করে সে চিবর ভান্তেদের উদ্দেশ্যে দায়ক-দায়িকারা উৎসর্গ (দান) করেন। এই কঠিন চীবর দানোৎসব মুলত উদ্দেশ্য একটাই বুদ্ধের সন্তুষ্টি অর্জন করা।

জয়নিউজ/জাফর/পিডি

 

আরও পড়ুন
লোড হচ্ছে...